ঢাকা : বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সংবাদ শিরোনাম :

  • একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দক্ষ প্রকৌশলীর বিকল্প নেই : রাষ্ট্রপতি          রাজধানীর ৬৪ স্থানে বাস স্টপেজ নির্মাণ হবে : কাদের          ২০৩০ সালের মধ্যে দেশে ৩ কোটি যুবকের কর্মসংস্থানের হবে : অর্থমন্ত্রী          দ্বীপ ও চরাঞ্চলে পৌঁছাচ্ছে ইন্টারনেট           সরকারি ব্যয়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে : স্পিকার          রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর          বাংলাদেশে আইএস বলে কিছু নেই : হাছান মাহমুদ
printer
প্রকাশ : ৩০ আগস্ট, ২০১৫ ১৭:২৩:৪২
নওগাঁয় ২২৫ জন হজ্জ যাত্রীর হজ পালন অনিশ্চিত
মান্দা (নওগাঁ) সংবাদদাতা


 


নওগাঁর জান্নাতুল খুলুদ ট্যুর এ্যান্ড ট্রাভেলস নামের এক হজ্ব এজেন্সির গাফলতি কবলে পড়ে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ২২৫ জন হজ্ব যাত্রীর হজ্ব ব্রত পালন। ওই এজেন্সির চাহিদা মতো যথা সময়ে হজ্বে যাওয়ার টাকা পরিশোধ করলেও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হজ্বে গমন ইচ্ছুক যাত্রীদের কাছে না পৌঁছায় তারা অজানা আতংকে ভূগছে। কোনো কোনো হজ্ব যাত্রী এজেন্সি কর্তৃপক্ষের কথা এবং কাজের সাথে মিল না থাকায় শেষ মূহূর্তের প্রস্তুতিতে সন্তুষ্টি না হয়ে টাকা এবং পাসর্পোট ফেরত চাইলে তা দিতেও টালবাহানা শুরু করেছে। এ কারণে হজ্বে যাওয়ার অনিশ্চয়তায় তাদের হতাশা আরো বেরে চলেছে। জানা গেছে, নওগাঁ জেলা সদরে ইসলামপুর রোড জমজম প্লাজায় অবস্থিত জান্নাতুল খুলুদ ট্যুর এ্যান্ড ট্রাভেলস নামের হজ্ব এজেন্সির পরিচালক মুফতি রাশেদ ইলিয়াছ নওগাঁ জেলা সদর, রাণীনগর-আত্রাই, বগুড়ার আদমদীঘিসহ বেশ কয়েকটি উপজেলায় তার নিয়োগকৃত তথাকথিত বেশ কিছু দালালের মাধ্যমে ২২৫ জন হজ্ব গমন ইচ্ছক ব্যক্তির কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। মাঝে মধ্যে তার স্থানীয় প্রতিনিধিরা হজ্বে যাওয়া ব্যক্তিদেরকে নানা ধরণের আশ্বাস ও প্রলোভনের মাধ্যমে হজ্বে যাওয়ার মত আশার বাণী দিলেও তারা শুধু মাত্র মোবাইল ফোনে মাঝে মধ্যে কথা বললেও ব্যক্তিগত ভাবে সরাসরি যোগাযোগ না করে আস্তে আস্তে ছিটকে পড়ছে। ১৬আগষ্ট সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ্ব যাত্রীদেরকে নিয়ে প্রথম ফ্লাইট জেদ্দার উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার কথা শুনে গ্রামাঞ্চলের এই সব সহজ সরল বয়স্ক মানুষেরা হজ্বে যাওয়ার নিশ্চয়তা না পেয়ে জীবনের শেষ বয়সে এসে একই চিন্তায় মাঝে মাঝে তারা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে। অনেকেই আবার এবছরেই হজ্বে যাব এরকম সুখবর আপন-আপন আতœীয়স্বজনের কাছে জানানোর পর লজ্জা ঘৃণা ও ক্ষোভে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছে। এই বুঝি শেষ বয়সে শেষ আশা টুকু পূরণ হয় না।
রাণীনগর উপজেলার হজ্ব যাত্রী কোরবান আলী মিঠু জানান, ওই হজ্ব এজেন্সীর খপ্পড়ে পড়ে এবার আমার হজ্বই করা হলো না। শেষ আশা দিলেও আমার বিশ্বাস হচ্ছে না। আরেক হজ্ব যাত্রী জাহিদুল ইসলাম জানান, এজেন্সী কর্তৃপক্ষ দুই এক দিনের মধ্যে আমাকে ব্যাগপত্র দিবে। হজ্ব ফ্লাইটের শেষের দিকে আমাকে নিয়ে যাবে বলে আশ্বাস দিয়েছে। হজ্ব গমন ইচ্ছক মাহমুদ হোসেন জানান, আমি এবারে হজ্বে যাওয়ার জন্য মাওলানা আনোয়ারের মাধ্যমে গত ২৯ জানুয়ারী ১৫ইং তারিখে জান্নাতুল খুলুদ হজ্ব এজেন্সীকে ৫০ হাজার টাকা দিয়েছি। অদ্যবদি তারা আমাকে হজ্বে যাওয়ার নিশ্চয়তা দিচ্ছে না।
রাণীনগর সিম্বা আল-মাদ্রাসাতুল কাশিমীয় বায়তুল এহসান মাদ্রাসার মহতামিম মাওলানা আনোয়ার হোসেন জানান, আমি নিজে হজ্ব এজেন্সী জান্নাতুল খুলুদ ট্যুর এ্যান্ড ট্রাভেলসের প্রতিনিধি হিসেবে ৩৭জনের কাছ থেকে চলতি বছরে হজ্বে পাঠানোর জন্য টাকা নিয়ে ওই এজেন্সীর কর্তৃপক্ষ কে দিয়েছি। এপর্যন্ত যতটুকু আমি জেনেছি আমার যাত্রীরা হজ্বে যেতে পারবে না।
জান্নাতুল খুলুদ ট্যুর এ্যান্ড ট্রাভেলস’র পরিচালক মুফতি রাশেদ ইলিয়াছ জানান, আমার প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপণায় ২২৫জন হজ্ব যাত্রী এবারে হজ্বে যাবে। কিছু অসুবিধার কারণে আমাদের ফ্লাইট দেড়ি হচ্ছে। তবে আগামী ১৬/১৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সব হজ্ব যাত্রীকে সৌদি পৌছে দেওয়া হবে।
রাণীনগর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল-মাসউদ চৌধুরী জানান, জান্নাতুল খুলুদ ট্যুর এ্যান্ড ট্রাভেলস এজেন্সীর রাণীনগর প্রতিনিধি মাওলানা আনোয়ার হোসেন ও আজাদুলের মাধ্যমে জানতে পেরেছি তারা দুই জন মিলে প্রায় ৭২জনের কাছ থেকে হজ্বে পাঠানোর কথা বলে টাকা নিয়েছে। যেহেতু এখন পর্যন্ত যেতে পারেনি তারা চাইলে অবশ্যই এই এজেন্সীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
ধর্মতত্ত্ব পাতার আরো খবর

Developed by orangebd