ঢাকা : রোববার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সংবাদ শিরোনাম :

  • পবিত্র আশুরা ১০ সেপ্টেম্বর          ডিএসসিসির ৩,৬৩১ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা          রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর          সংলাপের জন্য ভারতকে ৫ শর্ত দিল পাকিস্তান          এরশাদের শূন্য আসনে ভোট ৫ অক্টোবর          বাংলাদেশে আইএস বলে কিছু নেই : হাছান মাহমুদ
printer
প্রকাশ : ১৪ মার্চ, ২০১৬ ১১:২৫:১০আপডেট : ১৪ মার্চ, ২০১৬ ১১:৩০:২০
সুপার টেনে উঠলো টাইগাররা
টাইমওয়াচ ডেস্ক


 


টানা তামিম ঝড়ে ( প্রথম ম্যাচে ৮৩, দ্বিতীয় ম্যাচে ৪৭; আর রোববার রাতে ৬৩ বলে অপরাজিত ১০৩) গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই টি-২০ বিশ্বকাপের সুপার টেনে বাংলাদেশ। রোববার রাতে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে ওমানকে ৫৪ (ডার্ক ওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে) রানের ব্যাপক ব্যবধানে হারিয়েছে টাইগাররা। ফলে ৫ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন মাশরাফির দল।
বাংলাদেশ ক্রিকেট এখন সেই পর্যায়ে নেই যে, ওমানের মতো দলকে নিয়ে ভাবতে হবে। ভয় ছিল বৃষ্টি, কার্টেল ওভাল ম্যাচ।তামিমের রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরি, আর বাংলাদেশের বড় সংগ্রহে (১৮০)বৃষ্টির চিন্তা উড়ে গিয়েছিল।কিন্তু বৃষ্টি আসলো পরের ইনিংসে, বেশ ক’য়েকবার। কিন্তু সেই বৃষ্টি বাংলাদেশের নিশ্চিত জয়টা কেড়ে নিতে পারেনি।
বিরাট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ওমান বুঝিয়ে দেয়, এ ম্যাচ জেতা তাদের পক্ষে অসম্ভব। ৭ ওভারে ২ উইকেটে ওমানের রান যখন ৪১, তখন শুরু হয় বৃষ্টি।খেলা বন্ধ থাকে প্রায় ৩৫ মিনিট। পূণরায় খেলা শুরু হলে ওমানের সামনে টার্গেট দেওয়া হয় ১৬ ওভারে ১৫২। কিন্তু দেড় ওভার খেলা হবার পর ফের বৃষ্টি। তখন ওমানের রান ছিল ৪ উইকেটে ৪৫। মানে ৪ রানের মধ্যে পড়ে গেছে আরও ২ উইকেট।
বৃষ্টি থামলে ওমানের সামনে নতুন টার্গেট দেওয়া হয় ১২ ওভারে ১২০। মানে বাকি ২২ বলে দরকার ছিল ৭৫ রান।
কিন্তু সাকিবদের দারুণ বোলিংয়ে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়তে থাকায় শেষ পর্যন্ত ১২ ওভারে ৯ উইকেটে সাকুল্যে ৬৫ রানে তুলতে পারে ওমান। বাংলাদেশের পক্ষে সাকিব মাত্র ১৫ রানে ৪ উইকেট পান। আবু হায়দার রনি ছাড়া উইকেট পেয়েছেন সবাই।
এরআগে টস হেরে ব্যাট করতে নামা টাইগারদের শুরুটা অবশ্য ভাল ছিল না। প্রথম পাওয়ার প্লেতে আসে মাত্র ২৯ রান। সৌম্য সরকারের টি-২০ মেজাজ বিরুদ্ধ ব্যাটিং যার কারণ। সাম্প্রতিক সময়ে যিনি নিজের স্টাইলে ব্যাট করতে পারছেন না। এ ম্যাচে আরও ফ্লপ, করলেন ২২ বলে ১২। বাংলাদেশের বড় ইনিংস হওয়ার পথে প্রশ্নবোধক চিহ্ন জুড়ে বসে শুরুর নিতিবাচক ব্যাটিং।
শুরুতে সবধানী হলেও ক্রমশ নিজের চেহারায় ফিরতে থাকেন তামিম। প্রথম ৫ বলে এক রান নিলেও তামিম ঝড় শুরু এর অল্প পর থেকেই। সঙ্গে পান সাব্বির রহমানকে। গড়েন ৯৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ পার্টনারশীপ।ব্যস, ইনিংসের চেহারাই পাল্টে যায়।২৬ বলে ৪৪ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে  সাব্বির রহমান যখন আউট হন, তখন তামিমের সেঞ্চুরির অপেক্ষা।ক্যারিয়ার সেরা ৮৮ রানে টপকিয়ে সেঞ্চুরিটা অবশেষে পেলেন ৬০ বলে।
ব্যাট করতে নেমে প্রথম তিন বলে রান করতে না পারলেও শেষ দিকে ঠিকই কাজের কাজ করে দেন সাকিব আল হাসান।  ৯ বলে ১৭ রানে অপরাজিত। অপরাজিত থাকলেন তামিমও। ৬৩ বলে ১০৩ নট আউট। আর বাংলাদেশের স্কোর থামে ২ উইকেটে ১৮০ রানে।

বাংলাদেশ একাদশ : তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ মিথুন, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), আবু হায়দার রনি, তাসকিন আহমেদ, আল-আমিন হোসেন।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
খেলাধূলা পাতার আরো খবর

Developed by orangebd