ঢাকা : মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯

সংবাদ শিরোনাম :

  • পণ্য মজুদ আছে, রমজানে পণ্যের দাম বাড়বে না : বাণিজ্যমন্ত্রী          বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে আনতে চায় সরকার          অর্থনৈতিক উন্নয়নে সব ব্যবস্থা নিয়েছি : প্রধানমন্ত্রী          বনাঞ্চলের গাছ কাটার ওপর ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা          দেশের সব ইউনিয়নে হাইস্পিড ইন্টারনেট থাকবে
printer
প্রকাশ : ৩১ জুলাই, ২০১৬ ১৭:৪৮:২১
এক বছরে অধুনালুপ্ত দাসিয়ারছড়ায় ব্যাপক উন্নয়ন
কুড়িগ্রাম সংবাদদাতা


 


ভারত- বাংলাদেশের ১৬২টি ছিটমহল বিনিময়ের এক বছর পূর্তিতে আনন্দ উৎসবের আয়োজন করেছে  দাসিয়ারছড়া অধিবাসীরা । নাগরিকত্ব পাওয়ার ঐতিহাসিক এ দিনের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য  উৎসবের আমেজ চলছে ঘরে ঘরে । ৬৮ বছর বন্দি জীবনের গ্লানি মুছে যাওয়ার এক বছরের মাথায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড হয়েছে দাসিয়ারছড়ায় ভূ-খন্ডে । সে জরার্জিণ চিত্র নেই এখন অধুনালুপ্ত দাসিয়ারছড়ায় । পরিবর্তনের ছোয়া লেগেছে প্রত্যোকটি পরিবারে । এ উপলক্ষে দাসিয়ারছড়া  (আজ সোমবার ) আওয়রমীলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী ও বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পৃথক পৃথক কর্মসূচি পালন করবেন । এ ছিটমহলে রাত ১২টায় মোমবাতি প্রজ্বালোন মধ্যে দিয়ে শুরু হবে দিনের কার্যক্রম । একযোগে উঠানো হবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, র‌্যালী ,পুষ্পস্তবক অর্পণ । পরে অনুষ্ঠিত হবে নৌকা , হাডু-ডু ,নাঠি খেলাধুলাসহ নানা কর্মসূচির অনুষ্ঠান ।  
জানা গেছে, গত বছর ৩১ জুলাই মধ্যরাতে বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে বহুল আলোচিত স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের ফলে বাংলাদেশি ভূখন্ডে যোগ হয় ১১১ তৎকালীন ভারতীয় ছিটমহলের ১৭ হাজার ১৬০ দশমিক ৬৩ একর জমি। তখন থেকে  নতুন বাংলাদেশিরা এক বছরে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের অনেক কিছুই পেয়েছে। তার মধ্যে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার দাসিয়ারছড়া ছাড়া সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ পাওয়ায় বেশি খুশি হয়েছেন । সেখানে  ১৮টি দপ্তরের অধীনে বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পের কাজ চলছে । ইতিমধ্যেই  অনেক সুবিধাভোগি তা সুফলও পেয়েছেন । বাংলাদেশে অন্তর্ভুক্ত ছিটমহল গুলোর মধ্যে এটি সবচেয়ে বড় । যার দাসিয়ারছড়ার আয়তন এক হাজার ৬৪৩ দশমিক ৪৪ একর। এখানকার ৬ হাজার ৫২৯ জন অধিবাসী বাংলাদেশি নাগরিকত্ব পেয়েছেন। তার মধ্যে এক হাজার ৯শ ৪৭জন নতুন ভোটার হিসাবে ছবি তোলার কাজ সমাপ্ত করেছেন ২৫শে জুলাই । ভোটার স্থান্তর করেছেন ৬শ ৩৩ জন নারী পুরুষ ।  
ভাঙ্গা চুড়া রাস্তা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে নতুন ভাবে দাসিয়ারছড়ায় ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ২২ কিলোমিটার সড়ক ,এডিপির আওতায় বিশেষ ৫০লাখ টাকায় ব্রিজ-কালভার্ট, ৩০ লাখ টাকায় কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারসহ  বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকার্ন্ড চলছে সেখানে। জেলা পরিষদের আওতায়  প্রায় ২৫ লাখ টাকায় ১৮টি মসজিদ এবং ৩টি মন্দির নির্মাণের প্রকল্প কাজ করা হয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন বাংলাদেশ করর্পোরশেন আওতায় ২০ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা ব্যয়ে একটি ডিপটিউবয়েল,পুকুর খনন ও কার্ল ভাট ব্রিজ নিমার্ন করা হয়েছে । প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের অধীনে ৪০ দিনের প্রকল্প, টিআর, কাবিখা, জিআরসহ ব্যাপক বরাদ্দ দিয়েছে দাসিয়ারছড়ায় ।
এ ছাড়া ৫২ কিলোমিটার বিদ্যুৎ সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে দুই হাজার ৯শ জন গ্রাহককে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আনা হয়েছে। দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে তিনটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের নির্মান কাজ চলসে জোরেসোড়ে । বাধ্যতামূলক সবার জন্য শিক্ষা প্রকল্পের আওতায় ৪৪টি আনন্দ স্কুলের কেন্দ্র চালু করা হয়েছে ।  ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ১৪টি প্রাক শিশিু শিক্ষা কেন্দ্র রয়েছে ।ইউনিসেফর অর্থানে শিশু একাডেমি রয়েছে ১৫টি।
তিনটি  কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে সেবাদান শুরু হয়েছে। হাঁস-মুরগির টিকাদানসহ ৩০টি গবাদিপশু বিতরণ করা হয়েছে। ১৫০ জনকে বয়স্ক ভাতা,১১৪ জনকে বিধবা ভাতা এবং ২৮ জনকে প্রতিবন্ধী ভাতা দেওয়া হয়েছে। দুইটি বালিকা বিদ্যালয় ,তিনটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চলছে শিক্ষাদান । দেড় হাজার কৃষকদের প্রশিক্ষনসহ বিভিন্ন সুবিধা প্রদান করা হয়েছে ।
দাসিয়ার ছড়া ছিটমহলের সাবেক সভাপতি ও আওয়ামীলীগের আহবায়  বলেন, '৩১ জুলাই আমাদের জন্য গৌরবের দিন। এই দিনে আমরা কলঙ্কমুক্ত হয়েছি। সে কারণে স্মৃতি ধরে রাখার জন্য বিভিন্ন কর্মসূচির  আয়োজন করেছি।
সদ্য বিলুপ্ত বাংলাদেশ-ভারত ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটি, বাংলাদেশ ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে শতভাগ অধিবাসী বিদ্যুৎ সুবিধা পেয়েছেন। এখানে ৫২ কিলোমিটার সরবরাহ লাইনের আওতায় দুই হাজার ৯শ জন গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান, তিনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বেসরকারি উদ্যোগে নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয় ও তিনটি অস্থায়ী ভিত্তিতে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন, ছয় কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মাণে এ পর্যন্ত ২ কিলোমিটারে ইটের সলিংকরণ এবং তিনটি কালভার্ট নির্মাণসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ সম্পন্ন হয়েছে।
ফুলবাড়ীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবেন্দ্রনাথ ওরাঁও বলেন, ১৮টি দপ্তরের অধীনে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকার্ন্ডের কাজ চলছে । তা ছাড়াও হতদরিদ্র ও অসহায় ১০টি পরিবারকে প্রশাসনের উদ্যোগে একটি টিনসেড ঘন ,ল্রাটিন ও টিউবয়েল প্রদান করা হয়েছে ।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
বিশেষ প্রতিবেদন পাতার আরো খবর

Developed by orangebd