ঢাকা : রোববার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম :

  • মেক্সিকোতে ভূমিকম্প : নিহত ২৪৮          রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতীয় ঐক্য হয়ে গেছে, নতুন ঐক্যের দরকার নেই : নাসিম          ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল মধ্যম আয়ের দেশ হবে বাংলাদেশ : বাণিজ্যমন্ত্রী          রোহিঙ্গাদের ব্যাপার ঐক্যবদ্ধ হতে ওআইসি’র প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান          দু-এক দিনের মধ্যে চালের দাম কমবে : বাণিজ্যমন্ত্রী          রোহিঙ্গাদের প্রতি আন্তরিকতার কমতি নেই : ওবায়দুল কাদের          রোহিঙ্গারা ক্যাম্প ত্যাগ করলে অবৈধ বলে গণ্য হবেন : আইজিপি          রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ নৈতিক সাফল্য অর্জন করেছে : রুশনারা আলী
printer
প্রকাশ : ০৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১১:৫১:৫১আপডেট : ০৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৩:৪৬:৫৭
পাবনাবাসীর হৃদয়ের সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছাতে চাই : ছাত্রনেতা খন্দকার তৌহিদ আনোয়ার
ছাত্রনেতা খন্দকার তৌহিদ আনোয়ার


 


বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত এক মেধাবী ছাত্রনেতা খন্দকার তৌহিদ আনোয়ার। ছোটবেলা থেকেই তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাথে রাজনীতি করে আসছেন। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী তাকে যখন যে দায়িত্ব দিয়েছে তিনি সফলতার সাথে তা পালন করেছেন। ব্যক্তি স্বাথের্র ঊর্ধ্বে গিয়ে দল এবং দেশের স্বার্থে এ সংগঠনের সাথে শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন এই তরুন। ১৯৮৭ সালের ২৫ মে পাবনা শহরের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। পাবনা সরকারী জেলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক এবং পাবনা ইসলামীয়া কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ডিগ্রি সম্পন্ন করে পাবনা সরকারী অ্যাডওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর কোর্স সম্পন্ন করেন। অতঃপর ঢাকার উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি ডিগ্রি অর্জণ করেন এই মেধাবী ছাত্রনেতা। সম্প্রতি টাইমওয়াচকে তার রাজনৈতিক কর্মকান্ড নিয়ে তিনি এক বিশেষ সাক্ষাৎকার প্রদান করেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সাজনুশ রহমান

 

টাইমওয়াচ : শুরুতেই আপনার বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইছি।
তৌহিদ আনোয়ার : দীর্ঘদিন যাবৎ আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাথে রাজনীতি করে আসছি। বিগত দিনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ পাবনা সরকারী অ্যাডওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখার সাথে সক্রিয়ভাবে জরিত ছিলাম অতঃপর পাবনা জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। বর্তমানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী আমাকে পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে মনোনীত করেছে। এ অবস্থায় আমি সংগঠনের জন্য কাজ কাজ করে যাচ্ছি।

 

টাইমওয়াচ : বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাথে রাজনীতি করার পেছনে আপনার বিশেষ কোন কারণ রয়েছে কী?
তৌহিদ আনোয়ার : আপনি জানেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এ দেশের ছাত্র রাজনীতির গোড়াপত্ত্বনকারী ছাত্র সংগঠন। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে দেশের কল্যাণে যে সকল আন্দোলন সফল হয়েছে তা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রক্তে অর্জিত। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ আওয়ামিলীগের সহযোগী সংগঠন হিসেবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মহান মুক্তিযুদ্ধে যে অবদান রয়েছে তা ইতিহাসের স্বর্ণপাতায় আজীবন লেখা থাকবে। এছাড়া দেশ বিরোধী সব ধরনের ষরযন্ত্রের (দেশদ্রোহী শক্তির) বিরুেেদ্ধ বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আজও অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। আর এ প্রহরী দলের একজন সৈনিক হয়ে দেশ এবং দেশের মানুষের সেবা করার জন্য আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাথে রাজনীতি করে যাচ্ছি।

 

টাইমওয়াচ : আমরা জানি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের বর্ণাঢ্য অতীত রয়েছে। বর্তমানে অধিকাংশ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের মতে, এ সংগঠন আগের সে অবস্থান থেকে কিছুটা বিচ্যুত। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের হারানো অতীত ফিরে পাওয়ার জন্য আপনার কোন পরামর্শ রয়েছে কী?
তৌহিদ আনোয়ার : এ বিষয়ে আমার পরামর্শ হচ্ছে- ক. সংগঠনের প্রত্যেক নেতা-কর্মীকে আনূগত্যশীল হতে হবে। খ. জননেত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া যে কোন সিদ্ধান্ত সকল অবস্থাতে মেনে নিতে হবে। গ. তিনি যাকে যে দায়িত্ব দেবেন তাকে সে অবস্থানে থেকেই এ সংগঠনের জন্য সর্বোচ্চ আতœত্যাগ স্বীকার করতে হবে। ঘ. পদ-পদবী নিয়ে নিজেদের মধ্যে অহেতুক দাঙ্গা-হাঙ্গামা থেকে বিরত থাকতে হবে। ঙ. নেতা-কর্মীদের সার্বক্ষণিক দৃষ্টি রাখতে হবে যেন জঙ্গী সংগঠনের কোন সদস্য ছাত্রলীগে প্রবেশ করতে না পারে।

 

টাইমওয়াচ : ভিশন ২০২১ অর্জনে আপনার সংগঠন কী ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে?
তৌহিদ আনোয়ার : ভিশন ২০২১ অর্জনে দৃঢ় প্রত্যয়ী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যে মিশন হাতে নিয়েছেন তা অর্জনে সংগঠনের সকল নেতা-কর্মী সর্বদা প্রস্তূত রয়েছে এবং এ বিষয়ে ভবিষ্যতে তিনি যে দিক-নির্দেশনা দেবেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ রক্তের বিনময়ে হলেও তা বাস্তবায়ন করবে।

 

টাইমওয়াচ : সবশেষে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে বলবেন কী?
তৌহিদ আনোয়ার : বঙ্গবন্ধুর ভাবাদর্শে অনুপ্রাণীত হয়ে ছোটবেলা থেকেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাথে আমি রাজনীতি করে আসছি এবং ভবিষ্যতেও অনুকূল-প্রতিকূল সব অবস্থাতে এ সংঠনের সাথে থেকে দেশ এবং দেশের মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই। বিশেষ করে আমার কর্মাদর্শের মাধ্যমে আমি আমার জন্মভূমি পাবনারবাসী অর্থ্যাৎ পাবনার সব ধরনের শ্রেণী-পেশার মানুষের হৃদয়ের সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছাতে চাই এবং তাদের গৌণ-মৌন সমর্থণ তথা তাদের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ ভোট নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের হয়ে জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব করতে চাই।
 

printer
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাৎকার পাতার আরো খবর

Developed by orangebd