ঢাকা : বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • দুই দেশের সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাক : মমতা           কারও মুখের দিকে তাকিয়ে মনোনয়ন দেয়া হবে না : প্রধানমন্ত্রী          ২২তম অধিবেশন চলবে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত          জীবনমান উন্নয়নের শিক্ষাগ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী          দেশের উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে          বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছতে পারবে না : জয়
printer
প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি, ২০১৭ ১২:২৪:৫৭আপডেট : ২১ জানুয়ারি, ২০১৭ ১২:৩৪:৫২
বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু, কাল আখেরী মোনাজাত
টাইমওয়াচ রিপোর্ট


 

আ’ম বয়ানের মধ্যদিয়ে শুক্রবার ফজর নামাজের পর ৫২তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে।
ইজতেমার শীর্ষ মুরুব্বি দিল্লির মাওলানা শামীম এ বয়ান দেন। বাংলায় এর তরজমা করেন বাংলাদেশের মাওলানা মো: নূর রহমান।
টঙ্গীর তুরাগ তীরে এক কাতারে দাঁড়িয়ে শুক্রবার দুপুরেই দেশ-বিদেশের লাখো মুসল্লি আদায় করেন জুমার নামাজ। এতে ইমামতি করেন দিল্লি মারকাজের আমির মাওলানা সাদ কান্ধলভী।
জুমার নামাজের আগে পুরো ইজতেমা ময়দান জনসমুদ্রে পরিণত হয়। ময়দানের মোট ১৭টি প্রবেশ পথ দিয়ে জুমায় যোগ দেন মুসল্লিরা। ইজতেমার স্বেচ্ছাসেবকরা প্রবেশদ্বারগুলোতে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেন। মূল প্যান্ডেলের বাইরেও অনেক মুসল্লিকে জুমার নামাজ আদায় করতে দেখা গেছে।
ইজতেমা সূত্রে জানা যায়, জুম্মার নামাজে দেশী বিদেশী প্রায় ৪ থেকে ৫ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। তাবলিগ অনুসারি দলের সদস্য, তাবলিগ জামাতের কর্মী এবং টঙ্গী, গাজীপুর ও ঢাকাসহ আশপাশের জেলাগুলোর মুসল্লিরা অংশ নেন এ নামাজে।
বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৫ স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। লাখো মুসল্লির নিরাপত্তায় র‌্যাব, পুলিশ, এপিবিএন, গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি), সাদা পোশাকে পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মোট ১০ হাজার সদস্য কাজ করছেন তুরাগ তীর ঘিরে। এছাড়া ইজতেমার পুরো ময়দান, ময়দানের চারপাশ ও বাহিরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। এ বছর থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থায় এ সিসিটিভি ক্যামেরা যুক্ত করা হয়েছে।
এবারের বিশ্ব ইজতেমায় প্রথম পর্বে ১৬টি জেলার জামাতবদ্ব ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা জেলাওয়ারী ২৭টি খিত্তায় অবস্থান গ্রহণ করেছিলেন। দ্বিতীয় পর্বের দেশের ১৭টি জেলার মুসল্লিরা ২৯টি খিত্তায় অবস্থান নিয়েছেন। বাকী ৩১ জেলার মুসল্লিরা আগামী বছর (২০১৮) ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমায় শরীক হবেন বলে জানা গেছে।
৫২তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে রাজধানী ঢাকাসহ অংশ নেয়া ১৭টি জেলা হলো-ঢাকা, চাঁদপুর, নোয়াখলী, পাবনা, নওগাঁ, কিশোরগঞ্জ, কক্রবাজার, বাগেরহাঁট, কুষ্টিয়া, বরগুনা, বরিশাল, হবিগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, রাজবাড়ি, মেহেরপুর, লালমনিরহাঁট ও দিনাজপুর।
প্রথম পর্বে অংশ নেয়া ১৬টি জেলা ছিল-গাজীপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, বি-বাড়িয়া, মানিকগঞ্জ, রংপুর, চাপাইনবাবগঞ্জ, রাঙ্গামাটি, বান্দববান, গোপালগঞ্জ, শরিয়তপুর, যশোর, খাগড়াছড়ি, জয়পুরহাঁট, মৌলভী বাজার ও সাতক্ষিরা।
বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব ১৩ জানুয়ারি শুরু হয়ে ১৫ জানুয়ারি শেষ হয়। বিশ্ব তাবলিগ জামাতের আমির দিল্লীর মাওলানা মুহাম্মদ সা’দ প্রথম পর্বের আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করেন।
আগামীকাল ২২ জানুয়ারি, রোববার আখেরী মোনাজাতের মধ্যদিয়ে ৫২তম বিশ্ব ইজতেমার দুই পর্বের আসরের সমাপ্তি হবে।
দিল্লির মাওলানা মুহাম্মদ সা’দ দ্বিতীয় পর্বেও আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। রোববার সকাল ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে এ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
ধর্মতত্ত্ব পাতার আরো খবর

Developed by orangebd