ঢাকা : মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০

সংবাদ শিরোনাম :

  • এইচএসসি পরীক্ষায় বিষয় সংখ্যা কমানোর চিন্তা চলছে : শিক্ষামন্ত্রী          কোরোনায় আরও ৩৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৫০৪ জন          যুক্তরাষ্ট্র আর লকডাউন হবে না : ট্রাম্প          করোনাভাইরাস সারাবিশ্বটাকে স্থবির করে দিয়েছে : হাসিনা          স্ত্রীসহ হাসপাতালে ভর্তি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী          করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ব্যাংক ঋণের ২ হাজার কোটি টাকা সুদ মওকুফ ঘোষণা
printer
প্রকাশ : ২৫ এপ্রিল, ২০১৭ ১৭:৫৭:৪১
মুসলিম নাম নিষিদ্ধ করল চীন
টাইমওয়াচ ডেস্ক


 


জিনজিয়াং প্রদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম পরিবারের শিশুদের জন্য ইসলামি নাম রাখার ওপর কড়াকড়ি আরোপ করেছে চীন। সাদ্দাম, জিহাদ, ইসলাম, কুরআনের মতো কয়েক ডজন নাম নিষিদ্ধ করা হয়েছে মুসলিম অধ্যুষিত জিনজিয়াংয়ে।
২৫ এপ্রিল মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ) চীনের এই নতুন নিষেধাজ্ঞার সমালোচনা করে বলছে, চীন কয়েক ডজন ইসলামি নাম নিষিদ্ধ করেছে। এসব নিষিদ্ধ নাম রাখলে মুসলিম শিশুরা শিক্ষা ও সরকারি বিভিন্ন ধরনের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে।
এইচআরডব্লিউ বলছে, সম্প্রতি জিনজিয়াং কর্তৃপক্ষ বিশ্বের মুসলিমদের ধর্মীয় আবেগকে অতিরঞ্জিত করতে পারে পারে এমন বেশ কিছু নাম নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে।
জিনজিয়াংয়ের এক কর্মকর্তা রেডিও ফ্রি এশিয়াকে বলেন, চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির ‘জাতিগত সংখ্যালঘুদের জন্য নামকরণ নীতি’ অনুযায়ী ইসলাম, কুরআন, মক্কা, জিহাদ, ইমাম, সাদ্দাম, হজ্ব, মদিনাসহ আরো কিছু নাম নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
নিষিদ্ধ নামের শিশুরা ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট চালু, পারিবারিক নিবন্ধন, সরকারি স্কুলে ভর্তি ও অন্যান্য সামাজিক কাজের সুযোগ পাবেন না।
অস্থিতিশীল জিনজিয়াংয়ে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে চীনের লড়াইয়ের অংশ হিসেবে নতুন এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। দেশটির সংখ্যালঘু মুসলিম উইঘুর সম্প্রদায়ের অন্তত এক কোটি সদস্য বসবাস করেন জিনজিয়াংয়ে।
হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে, ধর্মীয় চরমপন্থা প্রতিহত করার নামে ধর্মীয় স্বাধীনতা সীমিত করতে নতুন এই পদক্ষেপ নিয়েছে চীন। চীনের সংখ্যালঘু উইঘুর ও হ্যান সম্প্রদায় জিনজিয়াংয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও শুধুমাত্র উইঘুরদের ওপর এই কড়াকড়ি আরোপ বৈষম্যমূলক।
তবে নিষিদ্ধ নামের পুরো তালিকা প্রকাশ না করায় কোন নামগুলো ধর্মীয় তা এখনো পরিষ্কার নয়। এর আগে গত ১ এপ্রিল জিনজিয়াং কর্তৃপক্ষ অস্বাভাবিক দাড়ি ও জনসমক্ষে পর্দা নিষিদ্ধ করে। এছাড়া রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ও রেডিও’র অনুষ্ঠান প্রত্যাখ্যান করলে শাস্তির মুখোমিুখি হতে হবে বলে নতুন নিয়ম চালু করে।
এসব বিধি-বিধান বাক স্বাধীনতা ও মত প্রকাশের দেশীয় ও আন্তর্জাতিক নিয়ম নীতির লঙ্ঘন বলে এইচআরডব্লিউ মন্তব্য করেছে।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
আন্তর্জাতিক পাতার আরো খবর

Developed by orangebd