ঢাকা : বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • দুই দেশের সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাক : মমতা           কারও মুখের দিকে তাকিয়ে মনোনয়ন দেয়া হবে না : প্রধানমন্ত্রী          ২২তম অধিবেশন চলবে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত          জীবনমান উন্নয়নের শিক্ষাগ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী          দেশের উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে          বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছতে পারবে না : জয়
printer
প্রকাশ : ২৭ জুলাই, ২০১৭ ১৫:৫৯:২৫
চর্যাপদ দেশ বিদেশে ছড়িয়ে দেয়া উদ্যোগ
নওগাঁ সংবাদদাতা


 


চর্যাপদ বাংলাভাষা ও বাংলা সাহিত্যের সবচেয়ে পুরাতন নিদর্শন। যেহেতু পদগুলোর শিরোনামে সঙ্গীত পরিচায়ক “রাগ” নির্দেশ থাকার কারনে এই চর্যার পরিচয় কেবলমাত্র কবিতা বা পদে সীমাবদ্ধ না থেকে সঙ্গীত হিসেবে পরিচিতি হওয়া বাঞ্ছনীয়। সেই অর্থে চর্যাপদগুলি অবশ্যই বাংলা গান বা বাংলা সঙ্গীতের আদিমাতা হিসেবে বিবেচ্য। আর এই চর্যাপদ রচিত হয়েছে নওগাঁ জেলার বদলগাছি উপজেলার পাহাড়পুর “সোমপুর বিহারে”। চর্যাপদ বাংলা ও বাঙালীর অমুল্য সাহিত্য ও সঙ্গীত রতœ। এর গবেষক ও রাগভিত্তিক সুর প্রদানকারী টাঙ্গাইলের সরকারী সা’দত কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল প্রফেসর আলীম মাহমুদ এই কথা বলেছেন।
তিনি মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় নওগাঁ সার্কিট হাউস মিলনায়তনে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে গিয়ে একথা বলেছেন।
চর্যাপদের এই গুরুত্ব সারাদেশ ও বিদেশে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষে এক অভিযাত্রা শুরু করেছে সরকারী সা’দত কলেজের বাংলা বিভাগ ও চর্যাসহজিয়া (চর্যাগানের গ্রন্থিকদল)। চর্যাভুমি নওগাঁ’র পাহাড়পুর থেকে এই অভিযাত্রা শুরু হয়েছে। এই অভিযাত্রায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন গবেষক ও চর্যাকারগণকৃত রাগ ভিত্তিক সুর প্রদানকারী প্রফেসর আলীম মাহমুদ। সোমবার বদলগাছি উপজেলার পাহাড়পুর সোমপুর বিহার চত্বরে চর্যাগীতি ও চর্যানৃত্য পরিবেশনের মাধ্যমে এই অভিযাত্রা শুরু হয়।
পাঁচদিনব্যাপী এই অভিযাত্রায় নওগাঁ সরকারী কলেজ, ধামইরহাট উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন, নওগাঁ জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তন এবং জয়পুরহাট শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে তাদের এই অনুষ্ঠান পরিবশেন করছে।
অভিযাত্রায় অন্যান্যের মধ্যে সরকারী সা’দত কলেজের বাংলা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক কামরুজ্জামান সরকার, বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক মো: আসাদুজ্জামান, সহযোগি অধ্যাপক মোঃ নজরুল ইসলাম খান, সহকারী অধ্যাপক হিমাংশু পাল, প্রভাষক শামস উদ্দিন চয়ন, প্রভাষক ফাহিমা আক্তার এবং চর্যাসহজিয়া আলী হাসান।
চর্যাসহজিয়ার গ্রন্থিকগণ যারা সংগীত, নৃত্য ও যন্ত্রসংগীতে অংশগ্রহন করেন তারা হলেন মোশারফ হোসেন, রাখাল রফিক, মোশারফ হোসেন সেতু, জুলহাস গায়েন, মঞ্জুশ্রী সুত্রধর, বিপাশা, কেয়ামনি, পরান জহির, পূর্নিমা রানী সিনহা, জাহিদ, সানী এবং স্বাধীন।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
সাহিত্য-সংস্কৃতি পাতার আরো খবর

Developed by orangebd