ঢাকা : শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট পাস          বাংলাদেশে মানুষের গড় আয়ু ৭২ বছর          মুম্বাইয়ে বিমান বিধ্বস্তে নিহত ৫          প্রস্তাবিত বাজেট সর্বোচ্চ জনকল্যাণমুখী : পরিকল্পনামন্ত্রী          গণতন্ত্র এখন সুরক্ষিত : প্রধানমন্ত্রী          নারীবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে সকলকে সহযোগিতার আহবান স্পিকারের
printer
প্রকাশ : ২৯ আগস্ট, ২০১৭ ১৬:৪১:৪৭
মেডিকেলে ভর্তি ফি ১৯ লাখ ৯০ হাজার টাকা কেন অবৈধ নয়
টাইমওয়াচ রিপোর্ট


 

বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে ১ম বর্ষে ভর্তি ফিসহ মোট ১৯ লাখ ৯০ হাজার টাকা নির্ধারণ করে সরকারের প্রজ্ঞাপন জারি করা কেন অবৈধ নয় -তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।
 
রুলে আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ঢাকা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ ও কলেজ পরিচালনা পর্ষদকে জবাব দিতে বলা হয়েছে।
 
২৯ আগস্ট মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত অবকাশকালীন বেঞ্চ এ রুল জারি করেন।
 
আদালতে রিট আবেদনটি দায়ের করেন ঢাকা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজে অধ্যয়নরত ইশরার বিনতে ইউনুছের পিতা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. মো. ইউনুছ আলী আকন্দ।
 
তিনি বলেন, ২০১৪ সালের ২৬ অক্টোবর স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে। সিনিয়র সহকারী সচিব মো. রেজাউল আলম সাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষ থেকে বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে ১ম বর্ষে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি ফি সরকার নিম্নরুপভাবে নির্ধারণ করেছেন। ১. ভর্তি ফি- ১৩ লাখ ৯০ হাজার টাকা। ২. ইন্টার্ন ভাতা এক লাখ বিশ হাজার। ৩. টিউশন ফি চার লাখ ৮০ হাজার টাকা। সর্বমোট ১৯ লাখ ৯০ হাজার টাকা।
 
প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, ভর্তির সময় জমাকৃত ইন্টার্ন ভাতা এক লাখ ২০ হাজার টাকা ইন্টার্নশীপ চলাকলীন সময়ে লভ্যাংশসহ ছাত্রছাত্রীদের ফেরত দিতে হবে।
 
ইউনুছ আলী আকন্দ বলেন, ওই প্রজ্ঞাপন সংবিধানের ২৭ অনুচ্ছেদসহ বিভিন্ন অনুচ্ছেদের লংঘন। এ ছাড়া ১৯৯৭ সালের ৭ জানুয়ারির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজকে শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমতি দিয়ে কিছু শর্তারোপ করে। ওই শর্তের ৬ ধারায় বলা হয়েছে, ভর্তির সময় কোন ছাত্র-ছাত্রীর কাছ থেকে উন্নয়ন ফি হিসেবে কোনক্রমেই পঞ্চাশ হাজার টাকার অধিক নেয়া যাবে না। ৭ ধারায় বলা হয়েছে, প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের নিকট থেকে এক হাজার দুইশত টাকার বেশি মাসিক বেতন নেয়া যাবে না।
 
এ ছাড়াও বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন, ২০১০ এর ৫ (৫) ধারা অনুসারে ‘মেডিকেল চিকিৎসা-শিক্ষা ও ডেন্টাল চিকিৎসা-শিক্ষার স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ভর্তির নীতিমালা ও শর্তাদি নির্ধারণ’ করবে কাউন্সিল।
 
কিন্তু ভর্তির টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার। এটাও বেআইনি উল্লেখ করে ইউনুছ আলী বলেন, রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট চার সপ্তাহের রুল জারি করেছেন।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয় পাতার আরো খবর

Developed by orangebd