ঢাকা : বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম :

  • সরকার নদীখননের কার্যক্রম হাতে নিয়েছে : নৌ-পরিবহনমন্ত্রী          দক্ষতা-জ্ঞান-প্রযুক্তির মাধ্যমেই সক্ষমতা অর্জন সম্ভব : পররাষ্ট্রমন্ত্রী           বাংলাদেশে এ বছর রেকর্ড পরিমাণ প্রবৃদ্ধি হয়েছে          জাতীয় নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত হয়নি : সিইসি          আ.লীগ সরকার ছাড়া কোনো দলই এত পুরস্কার পায়নি : প্রধানমন্ত্রী          মোবাইল ব্যাংকিং সেবার চার্জ কমে আসবে : অর্থমন্ত্রী          রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে সু চিকে জাতিসংঘের অনুরোধ
printer
প্রকাশ : ১৫ অক্টোবর, ২০১৭ ১৫:১৯:৪৪
শার্শায় ম্যাক্সিকো জাতের টার্কি চাষে সফল এক খামারী
এম এ রহিম, বেনাপোল

 

যশোরের শার্শায় ম্যাক্সিকো জাতের টার্কি চাষে সাফল্য পেয়েছে এক খামারী। পল্টি খাদ্য ছাড়াও লতাপাতা ঘাসবন খাইয়ে পালা যায় সুস্বাদু চর্বিমুক্ত টার্কি মুরগি। অল্প সময়ে স্বল্প খরচে টার্কি মুরগি চাষ লাভবান হওয়ায় বাড়ছে চাষ। আর্থিকভাবে লাভবান হচ্চেন এসব খামারীরা। মিটছে মাংসের যোগান।
                               
যশোরের সীমান্তবর্তী উপজেলার নাম শার্শা। কৃষি প্রধান এলাকা হওয়ায় এখানে বেকারত্বও বেশী। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে অনেক বেকার যুবক যুবতীরা মাছ গরু ছাগল পোল্টি ফার্মসহ আম পেয়ারা কুল ও ফুল চাষ করে নিজেদের স্বালম্বী করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। আর এই প্রথম যশোরের শার্শার উলাশি গিলাপোল পল্লীতে উত্তর আমেরিকার ম্যাক্সিকো জাতের টার্কি মরগি চাষ করে সফলতা পেয়েছেন খামারী রাজু। নিজবাড়ীতে গড়ে তুলেছেন হল্যান্ড, ব্লাক, রয়েল ও ব্রান্স জাতের টার্কি শার্শায় ম্যাক্সিকো জাতের টার্কি চাষে সফল এক খামারী
খামার ও হ্যাচারী। মাত্র দেড়লাখ পুঁজি নিয়ে চাষ শুরু করে এখন তার খামারে আছে প্রায় ১০ লাখ টাকার টার্কি ও টিটা জাতের ৫শতাধিক মুরগি ও বাচ্চা। তার খামার থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা শহর থেকে আসা চাষীরা প্রতিপিচ ৩শ টাকা দরে টার্কি বাচ্চা নিয়ে গড়ে তুলছেন খামার-লাভবান হচ্ছেন তারা।
একটি বিমান বাহিনীতে চাকুরী করতেন যুবক জাহিদ পারভেজ রাজু, বিমানটি দেওলিয়া হয়ে যাওয়ায় বেকার হয়ে পড়ে সে। অবশেষে শার্শার উলাশিতে নিজ বাড়ীতে  গড়ে তোলেন উন্নত জাতের টার্কি খামার। শুরু করেন চাষ। টার্কি চাষে হয়েছেন লাভবান। ফলে মিটছে মাংসের চাহিদা কমছে বেকারত্ব। তার দেখে অনেকে জড়িয়ে পড়েছে টার্কি চাষে।
টার্কি খামারী আজগার আলী ও জাকের হোসেন বলেন, রাজুর টার্কি খামার লাভবান হওয়ায় তার কাছ থেকে টার্কি নিয়ে গড়েছেন খামার লাভবান হচ্ছেন তারা। তাদের সংসারে সুদিন ফিরতে শুরু করেছে।
 
বর্হিবিশ্বে সু স্বাদু চর্বিমুক্ত এ মাংসের কেজি ৫থেকে ৬হাজার টাকা হলেও দেশের বাজারে জীবন্ত প্রতিকেজি সাড়ে ৩শ ও কাটা মাংষ ৫শ টাকায় বিক্রি হয়। ফলে এ মাংসের চাহিদা থাকায় আর্থিকভাবে লাভবান হওয়া আশায় খামার গড়ে সাফলতা পেয়েছেন রাজু।  শার্শায় ম্যাক্সিকো জাতের টার্কি চাষে সফল এক খামারী
শার্শা উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা জয়দেব কুমার সিংহ বলেন, চর্বি মুক্ত ও স্বুস্বাদু হওয়ায় সারা বিশ্বে এ মাংশের চাহিদা রয়েছে ভাল। ১০ থেকে ১২ কেজি ওজন হয় এই মুরগি। ৬ মাস পর ডিম দেয় তারা। পোল্টি খাদ্যের সাথে লতাপাতা তৃর্নখেয়েও বড় হয় তারা। বানিজ্যিক ভাবে শার্শায় শুরু হয়েছে টার্কি ও টিটি চাষ। এ চাষ লাভবান হওয়ায় অনেকে ঝুকছেন টার্কি চাষে লাভবান হচ্ছেন তারা। প্রশিক্ষন ও সহযোগিতা দিচেছন উপজেলা প্রানী সম্পদ বিভাগ।
 
সরকারি সহযোগিতা সহ আরো সহযোগিতা পেলে টার্কি চাষে মাংস ও মুরগির এলাকার চাহিদা মিটিয়ে বাহিরে রফতানি করার আশা করেন এলাকার খামারীরা।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
অর্থ-বাণিজ্য পাতার আরো খবর

Developed by orangebd