ঢাকা : মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম :

  • সরকার নদীখননের কার্যক্রম হাতে নিয়েছে : নৌ-পরিবহনমন্ত্রী          দক্ষতা-জ্ঞান-প্রযুক্তির মাধ্যমেই সক্ষমতা অর্জন সম্ভব : পররাষ্ট্রমন্ত্রী           বাংলাদেশে এ বছর রেকর্ড পরিমাণ প্রবৃদ্ধি হয়েছে          জাতীয় নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত হয়নি : সিইসি          আ.লীগ সরকার ছাড়া কোনো দলই এত পুরস্কার পায়নি : প্রধানমন্ত্রী          মোবাইল ব্যাংকিং সেবার চার্জ কমে আসবে : অর্থমন্ত্রী          রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে সু চিকে জাতিসংঘের অনুরোধ
printer
প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর, ২০১৭ ১৬:৪৫:১৬
খুলনা-কলিকাতা যাত্রীবাহী বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন উদ্বোধন করলেন দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী
এম এ রহিম, বেনাপোল

 

বাংলাদেশ ও ভারতর মধ্যে সৌহার্দ সম্পৃতি এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি সহ মাইল ফলক স্থাপনে ও  মৈত্রী বন্ধনে দু’দেশের মধ্যে রেল চলাচলে আরো একটি মেল বন্ধনের সৃষ্টি হলো। ৯ নভেম্বর দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্ধোধন করলেন কলিকাতা খুলনা যাত্রীবাহী ট্রেন। বৃহস্পতিবার খুলনা বেনাপোল কলিকাতায় যাত্রীবাহি বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রা শুরু হলো। কলিকাতা থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনটি বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় বেনাপোলে পৌঁছায়। এসময় টেনটি বেনাপোলে আসলে সীমান্তে পতাকা ও হাত নেড়ে অভিবাদন জানান স্থানীয়রা। ভারতের ২২ সদস্যের টিমকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। এসময় আবারও কালের স্বাক্ষী হয় দু-পারের হাজারও মানুষ। পরে ১টা ৫২ মিনিটে খুলনার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় ট্রেনটি।
 
ট্রেনটি বাণিজ্যিকভাবে চলাচল শুরু হলো বলে জানান খুলনা বিভাগীয় প্রধান অসীম কুমার তালুকদার। ট্রেনটি চলাচল শুরু হওয়ায় খুশি যাত্রীরা সহ স্থানীয়রা।
ট্রেনে আসা বাংলাদেশ রেল মন্ত্রণালয়ের  সহকারি সচিব কামরুল হাসান ও রেল মন্ত্রীর পিএস জসিম উদ্দিন বলেন, ট্রেন চলাচলে দু’দশের মধ্যে মাইলফলক তৈরী হলো। দিন দিন বাড়ছে যাত্রী। ফলে আগামীতে যাত্রীর সংখ্যা বিবেচনা করে ট্রেন ও সিডিউল বাড়ানোর যাবে বলে জানান তারা।
ভারত থেকে আসা তপন দে ও স্বপর কুমার  বলেন, আমরা অভিভূত হয়েছি দু’পারের মানুষ এত কাছের আপন ভাবা যায়না। ট্রেন সেবার বাড়ানোর পক্ষে মত দেন তারা।
খুলনা-কলিকাতা যাত্রীবাহী বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন উদ্বোধন করলেন দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী
ভারতের রেল এক্সচেঞ্জ অফিসার অশোক বিশ্বাস বলেন, বাণিজ্যিকভাবে শুরু হবে রেল সেবা। ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ব্যবসা-শিক্ষা-স্বাস্থ্য চাকুরী ভ্রমণসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুযোগ সৃষ্টি হলো। এধারা অব্যাহত থাকবে বলে জানান তারা।
 
বেনাপোল রেল ষ্টেশন জামে মসজিদ ইমাম আব্দুর রহিম বলেন, রেল জগতের একটি নতুন মাইল ফলক তৈরী হলো। বেনাপোলে রয়েছে যাত্রী সেবার সুযোগ সৃুবিধা। ইমিগ্রেশন কাষ্টমসের কার্যক্রম ভাল। তবে  ভাড়া কমানোসহ রেল সিডিউল বৃদ্ধি করার প্রয়োজন বলে জানান তিনি।
 
অসীম কুমার তালুকদার বিভাগীয় প্রধান রেল কর্মকর্তা-খুলনা বলেন, ১৬ নভেম্বর থেকে শুরু হবে নিয়মিত চলাচল। প্রতি বৃহস্পতিবার কলিকাতা থেকে ৭টা ১০ ছেড়ে এসে ৯টা ১০ মিনিটে বেনাপোলে পৌঁছাবে ট্রেনটি। বেনাপোল রেল ষ্টেশনে কাষ্টম ও ইমিগ্রেশন সম্পন্ন করে ১২টায় খুলনা পৌঁছাবে  ট্রেনটি। একই ট্রেন ১টা ২০ মিটিটে ছেড়ে ৩টা ৫মিনিটে বেনাপোলে পৌঁছাবে। পরে কলিকাতার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে ট্রেনটি। যার ভাড়া ধরা হয়েছে চেয়ার ভেট ও শুল্ক সহ ১০০০ টাকা এসিকোচ ১৫শ’ টাকা। রেল যাত্রী সেবা বৃদ্ধি সহ দু’দেশের মধ্যে আরো সৌহার্দ্য ও সম্পৃতি বৃদ্ধি পাবে বলে জানান তারা।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয় পাতার আরো খবর

Developed by orangebd