ঢাকা : মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • আঞ্চলিক দেশগুলোর চেয়ে বাংলাদেশে নারীরা এগিয়ে : চুমকি          সরকারের কাজ সম্পর্কে জনগণকে ধারণা দিতেই উন্নয়ন মেলা          পাবলিক পরীক্ষায় অনিয়ম হলে কঠোর ব্যবস্থা : শিক্ষামন্ত্রী           সালেই বাংলাদেশ বিশ্বের উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে : মেনন          বিশ্ব ইজতেমায় বিভিন্ন দেশ থেকে আসছে শতশত মুসুল্লি
printer
প্রকাশ : ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৯:০২:০২
বেনাপোলে মাছ চাষে সফল নারীরা
এম এ রহিম, বেনাপোল (যশোর)


 


যশোরের শার্শা-বেনাপোলে বানিজ্যিক ভাবে শুরু হয়েছে মাছ চাষ। সফল মাছ চাষী সাকিলা আকতার ও সাফিয়া খাতুন সহ এ উপজেলায় প্রায় ৩শ নারী বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষ করে পেয়েছেন সাফল্য। বাড়ছে মাছ চাষ। ফলে লক্ষ মত্রার তিনগুন বেশী মাছ উৎপাদন হওয়ায় এলাকার চাহিদা মিটিয়ে মাছ রফতানি হচ্ছে বাহিরে জানান উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা।   
 
মৎস্য সম্প্রসারণ প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন প্রকার মাছ চাষে এগিয়ে এসেছে নারীরা। ডিগ্রি পড়–য়া শিক্ষার্থী বেনাপোল বাহাদুর পুর গ্রামের সাকিলা আক্তার ও গৃহিনী গোগা আমলাই গ্রামের সাফিয়া খাতুন তিন বছর আগে থেকেই নিজ জমিতে ভেড়ী কেটে শুরু করেছেন মাছ চাষ। মৎস্য অধিদপ্তরের সহযোগিতায় ও নিবিড় পরিচর্যা করে তাদের মৎস্যঘেরে একই জলাকারে তিন স্থরে রুই কাতলা মৃগেল মনোসেক্স, পুটি, সিলবার, গ্লাসকাপ সহ চাষ করছেন ১৫ প্রজাতির মাছ-লাভবান হয়েছেন তারা। তাদের সংসারে ফিরেছে স্বচ্ছলতা। তাদের দেখে অনেক নারী ঝুকছেন মাছ চাষে পাচ্ছেন সাফল্য। মানুষের শরীরের আমিশের ঘাটতি পূরনসহ পুষ্টির চাহিদা মিটাতে বিভিন্ন প্রকার মাছের কদর রয়েছে সর্বত্র। শার্শা উপজেলায় বিস্তর্ন্ন এলাকার হাওড় বাওড় জলাশয় ঘের ও ভেড়ীতে হচ্ছে মাছ চাষ।    
কর্মঠ উদ্যোমী ও সফল মাছ চাষী বাহাদুরপুর-গ্রামের নারী উদ্যোক্তা সাকিলা আক্তার,পড়া লেখার পাশা পাশি তাদের পূর্বমাঠের বিলে উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তরের সহযোহিতা প্রশিক্ষন নিয়ে ৩০বিঘা জমিতে ১৫ প্রজাতির মাছ চাষ করেছেন। পরিচর্যা সহ ১৪ লাখ টাকার মাছ ছেড়েছে তিনি। এক বছরের মধ্যে ২৫লাখ টাকার মাছ বিক্রি হবে আশা তারা।   
 সফল মাছ চাষী আমলাই গোগার সাফিয়া খাতুন ৪বিঘা জমিতে করেছেন মাছ চাষ। মাছ চাষে ভালই সংসার চলছে তার। তাদের দেখে উপজেলায় প্রায় ৩শ নারী ঝুকেছেন মাছ চাষে। সাফল্য পাচ্ছেন তারা। দিন দিন বাড়ছে নারী মাছ চাষী সরকারের আরো সহযোগিতা কামনা করেন তারা।
 
গোগা আমলা ইউপি সদস্য সামসুজামান বুলু-ও বাহাদুরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বলেন,  শার্শায় মাছ চাষে লাভবান হওয়ায় একে অপরের দেখাদেখি নারীরা ঝুকছেন মাছ চাষে লাভবান হচ্ছেন তারা। নিজেরা উদ্বুদ্ধ হয়ে হাওড় বাওড়া ঘের ও ভেড়ীতে মাছ চাষ করছেন এলাকার নারীরা স্বালম্বি হচ্ছেন তারা। সরকারের আরো সহযোগিতা পেলে শার্শায় মাছ চাষে ঘটবে বিপ্লব এমটাই জানান স্থানীয়রা।
শার্শা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো: আবুল হাসান বলেন, বর্তমান মৎস্য বান্ধব সরকার মাছ চাষে উৎপাদন বৃদ্ধিতে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহন করেছে। এ প্রকল্পের আওতায় মাছ চাষে এগিয়ে এসেছে নারীরা। প্রশিক্ষন পরামর্শ ও আর্থিক সহযোগিতা দিচ্ছেন মৎস্য অধিদপ্তর নারীদের মধ্যে আগ্রহ বাড়ছে। ফলে বাড়ছে মাছ চাষ পূরন হচ্চে মাছের ঘাটতি ও মিটছে আমিশের চাহিদা- শার্শা উপজেলায় মাছের চাহিদা রয়েছে ৭হাজার মে:টন উৎপাদন হচ্ছে ২১হাজার মে:টন-জানান মৎস্য অধিদপ্তর।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
অর্থ-বাণিজ্য পাতার আরো খবর

Developed by orangebd