ঢাকা : মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • রোববার থেকে সারাদেশে ট্রাফিক সপ্তাহ          দেশের উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে          বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছতে পারবে না : জয়          বাংলাদেশে মানুষের গড় আয়ু ৭২ বছর          প্রস্তাবিত বাজেট সর্বোচ্চ জনকল্যাণমুখী : পরিকল্পনামন্ত্রী
printer
প্রকাশ : ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৭:৪১:৪২
৭ মার্চের ভাষণে জাতির অস্তিত্বের ইতিহাস প্রতিফলিত : প্রধানমন্ত্রী
পটুয়াখালী সংবাদদাতা


 

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ৭ মার্চের ভাষণে জাতির অস্তিত্বের ইতিহাস প্রতিফলিত হয়েছে। আমার মা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব ভাষণ দিতে বাড়ি থেকে বের হওয়ার প্রাক্কালে বাবাকে পরামর্শ দিয়ে বলেছিলেন, কারো দ্বারা প্রভাবিত হয়ে নয়, তার বিবেক যা বলে- সেই কথাগুলোই ভাষণে বলে আসতে। আমার মা বুঝতেন, জাতির পিতাই বাঙালির আশা-আকাঙ্ক্ষা, দুঃখ-বঞ্চনার কথা সবচেয়ে ভালো জানেন। বাঙালি জাতির প্রতি তার মতো গভীর আন্তরিকতা আর কারো নেই।
 
 
২৪ ডিসেম্বর রবিবার দুপুরে চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।
 
 
এর আগে রবিবার বাংলাদেশ বিমানের নিয়মিত ফ্লাইট বিজি-০৪১১ ফ্লাইটে সকাল সাড়ে ১০টায় তিনি ঢাকা থেকে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান।
 
 
পরে প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামের বিএনএ ফ্লোটিলায় রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ মিডশিপম্যান-২০১৫ পরিদর্শন এবং বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্সের উদ্বোধন করেন।
 
 
পটুয়াখালীতে এভিয়েশন সুবিধাসহ দেশের সবচেয়ে বড় নৌঘাঁটি ও রাজধানীর খিলক্ষেতে বঙ্গবন্ধু নৌঘাঁটি নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়া কুতুবদিয়াতে সাবমেরিন ঘাঁটি নির্মাণ করা হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
 
 
প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাকেই দ্রুত মিয়ানমার ফেরত পাঠাবে সরকার। মিয়ানমারের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ীই সবকিছু করা হবে।
 
 
তিনি বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বিজয়ী জাতি। অন্যায়ের কাছে মাথানত অথবা যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পিছপা হব না।
 
 
শেখ হাসিনা বলেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ শোষণ-শাসনে জর্জরিত জাতির বেদনার উপাখ্যান। ইউনেস্কোর এই স্বীকৃতি জাতির পিতার আহ্বানে সংঘটিত মুক্তিযুদ্ধের অবিনশ্বর ত্যাগ ও সংগ্রামের ইতিহাসের আলোকে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে আত্মবিশ্বাসী এবং দৃঢ়চেতা করবে।
 
 
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিডশিপম্যানদের উদ্দেশ্যে বলেন, ১৯৬৬’র ৬-দফায় বঙ্গবন্ধুই প্রথম পূর্ববঙ্গে নৌবাহিনীর সদর দপ্তর প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছিলেন। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে তোমরা এ দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার মহান দায়িত্বে আত্মনিয়োগ করবে। একটি সুশৃঙ্খল বাহিনীর সদস্য হিসেবে সর্বদা ঊর্ধ্বতনদের প্রতি আনুগত্য ও অধঃস্তনদের সহমর্মিতা প্রদর্শন করবে। চেইন অব কমান্ড মেনে চলার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ নৌবাহিনীকে বিশ্ব দরবারে আরো গৌরবোজ্জ্বল আসনে অধিষ্ঠিত করতে সক্ষম হবে।
 
 
মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আত্নত্যাগে নবীন নৌ সদস্যদের প্রতি আহবান জানান তিনি।
 
 
অনুষ্ঠান শেষে তিনি সদ্য প্রয়াত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর বাসায় যাবার কথা রয়েছে।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয় পাতার আরো খবর

Developed by orangebd