ঢাকা : শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • জাতীয় নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর          নির্বাচনের তারিখ পেছানোর কোনো সুযোগ নেই : সিইসি          আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার বুধবার থেকে নেবেন প্রধানমন্ত্রী          দুই দেশের সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাক : মমতা          জীবনমান উন্নয়নের শিক্ষাগ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী          বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছতে পারবে না : জয়
printer
প্রকাশ : ০১ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৭:৩২:১৪
মানিকগঞ্জসহ বাংলাদেশের ২১ হাজার স্বাস্থ্য সহকারীর কর্মবিরতি
মানিকগঞ্জ সংবাদদাতা


 

চার দফা দাবিতে কর্মবিরতি পালন করছেন মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার সাস্থ্য সহকারীসহ সারা বাংলাদেশের ২১ হাজার স্বাস্থ্য সহকারী।
বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশন দাবি বাস্তবায়ন সমন্বয় পরিষদ আজ এ কর্মবিরতির ঘোষণা দেয়।
স্বাস্থ্য সহকারীরা নিজেদের কেন্দ্রে কাজ বন্ধ রেখে স্ব-স্ব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবস্থান করছেন।
স্বাস্থ্য সহকারীদের চার দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, বেতন স্কেলসহ টেকনিক্যাল পদমর্যাদা, মূল বেতনের ৩০ শতাংশ মাঠ-ভ্রমণ ভাতা ও ঝুঁকি ভাতা, প্রতি ছয় হাজার জনসংখ্যার বিপরীতে একজন স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগ প্রদানের নিশ্চয়তা এবং ১০ শতাংশ পোষ্য কোটা প্রর্বতন করা।
বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশনের দাবি আদায় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক এনায়েত রাব্বি লিটন বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও দেশি বিশেষজ্ঞদের মতে স্বাস্থ্য সহকারীদের কাজগুলো টেকনিক্যালধর্মী হলেও দীর্ঘদিন থেকে স্বাস্থ্য সহকারীরা টেকনিক্যাল পদমর্যাদার দাবি করে এলেও সরকার তা বাস্তবায়ন না করায় পদমর্যাদাসহ চরম বেতন বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন তারা।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৮ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বাস্থ্য সহকারীদের মহাসমাবেশে পদমর্যাদাসহ বেতন বৈষম্য নিরসনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, অর্থ, জনপ্রশাসন ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি সমন্বয়ে গঠিত উচ্চ পর্যায়ের একাধিক কমিটির অনুকূল সিদ্ধান্ত থাকা সত্ত্বেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।
তিনি বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রাণালয়ের অধীনস্থ প্রকল্পের আওতায় এইচএসসি পাস সিএইচসিপিদের ১৪তম গ্রেডে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় মা ও শিশুর স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করা তৃণমূলের স্বাস্থ্য সহকারীদের ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন হয়নি এখনো।

মানিকগঞ্জজেলা হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আবুল ওয়ারেশ পাশা পলাশ বলেন, আমাদের দাবি সরকারের বিরুদ্ধে নয়, আমাদের দাবি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার বাস্তবায়ন করা, এত দিন বিভিন্ন মাধ্যমে চেষ্টা করে কোন সুফল পাইনি তাই বাধ্য হইয়ে এই কর্মবিরতি, আশা করি সরকার প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের দিকে সুনজর দিবেন।
 

printer
সর্বশেষ সংবাদ
সারা দেশ পাতার আরো খবর

Developed by orangebd