ঢাকা : বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • জাতীয় নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর          নির্বাচনের তারিখ পেছানোর কোনো সুযোগ নেই : সিইসি          আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার বুধবার থেকে নেবেন প্রধানমন্ত্রী          দুই দেশের সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাক : মমতা          জীবনমান উন্নয়নের শিক্ষাগ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী          বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছতে পারবে না : জয়
printer
প্রকাশ : ২৫ এপ্রিল, ২০১৮ ১০:৫৪:২০
বিশুদ্ধ পানি বাজারজাত লক্ষ্যে বিএসটিআইতে মতবিনিময়
টাইমওয়াচ রিপোর্ট


 


বিশুদ্ধ পানি বাজারজাত নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট এসোসিয়েশন নেতৃবৃন্দ এবং ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেছে পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)। মঙ্গলবার তেজগাঁওস্থ বিএসটিআইয়ের প্রধান কার্যালয়ে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএসটিআইয়ের মহাপরিচালক সরদার আবুল কালাম। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন বিএসটিআইয়ের পরিচালক (সিএম) প্রকৌশলী এস. এম. ইসহাক আলীসহ বিএসটিআইয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। সভায় এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ মিনারেল এন্ড পিউরিফাইড ড্রিংকিং ওয়াটারের সভাপতি প্রকৌশলী এ. মতিন চৌধুরী, পিওর ড্রিংকিং ওয়াটার ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-এর সভাপতি জনাব আওলাদ হোসেন রাজীব, সাধারণ সম্পাদক কে.এম. আরিফ উল কবীরসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পানি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।   
মতবিনিময় সভায় বিএসটিআই মহাপরিচালক বলেন, উৎপাদনকারীদের দায়িত্ব বিশুদ্ধ পানি ভোক্তার হাতে পৌঁছে দেয়া। যারা বিএসটিআই থেকে সনদ নিয়েছেন তারা মানের বিষয়ে কোন আপোষ করবেন না। আর যে সব প্রতিষ্ঠান বিএসটিআইয়ের লাইসেন্স না নিয়ে পানি বাজারজাত করছে তাদের বিরুদ্ধে বিএসটিআই বিভিন্ন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। তিনি বলেন,  বৈধ ব্যবসায়ীদের খেয়াল রাখতে হবে কারা অবৈধ ব্যবসা করছে। অবৈধ ব্যবসায়ীদের বিষয়ে বিএসটিআইকে তথ্য দিয়ে সহায়তা করতে হবে।
সভায় বৈধ লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের পানির জার বা বোতলের গায়ে ব্র্যান্ডের নাম এবং পূর্ণাঙ্গ ঠিকানাসহ মানসম্মত লেবেলিং ব্যবহার, ডিলারের মাধ্যমে পানি বাজারজাত বন্ধ করার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।
সভায় তথ্য প্রকাশ করা হয় যে, মে, ২০১৭ তারিখ থেকে মার্চ, ২০১৮ তারিখ পর্যন্ত অবৈধ ড্রিংকিং ওয়াটারের ওপর বিএসটিআই মোট ১৭টি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে। এ সময়ে ৫৮টি প্রতিষ্ঠানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ২৫ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা জরিমানা আদায়, ১৬টি প্রতিষ্ঠান সিলগালা করা এবং ৩৭ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদ- প্রদানসহ ২৬ হাজার ১০০টি জার ধ্বংস করা হয়।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
সারা দেশ পাতার আরো খবর

Developed by orangebd