ঢাকা : শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • জাতীয় নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর          নির্বাচনের তারিখ পেছানোর কোনো সুযোগ নেই : সিইসি          আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার বুধবার থেকে নেবেন প্রধানমন্ত্রী          দুই দেশের সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাক : মমতা          জীবনমান উন্নয়নের শিক্ষাগ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী          বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছতে পারবে না : জয়
printer
প্রকাশ : ০৭ মে, ২০১৮ ১০:৪৭:১৯আপডেট : ০৭ মে, ২০১৮ ১১:২৪:৩১
জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ির সুবিধা-অসুবিধা
টাইমওয়াচ ডেস্ক


 

জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতিগুলোর মধ্যে গর্ভনিরোধক খাবার বড়ি/পিল একটি পদ্ধতি। বর্তমানে প্রচলিত মিশ্র খাবার বড়ির উপাদান হোল ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্টোরেন হরমোন। মূলত ইস্ট্যোজেন হরমোন এর পরিমাণের উপর ভিত্তি করে খাবার বড়ির প্রকার নির্ণয় করা হয়। খাবার বড়ির সুবিধার পাশাপাশি কিছু অসুবিধা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও লক্ষণীয়।
 
 
খাবার বড়ির অন্যান্য স্বাস্থ্য সুবিধা
জরায়ুর বাইরে গর্ভধারণের ঝুকি কমায়।
মাসিকের সময় জরায়ুর মোচড়ানো ব্যথা কমায়।
মাসিকের স্রাবের সময়কাল ও পরিমাণ কমায় এবং রক্তসল্পতা দূর করতে সাহায্য করে।
মাসিক চক্রকে নিয়মিত করে।
ডিম্বাশয়ে সিস্ট হওয়ার ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।
স্তনের ব্যাধির সম্ভাবনা কমায়।
গনোরিয়াজনিত পিআইডির মাত্রা হ্রাস করে।
ব্রণ, অবাঞ্ছিত লোম ওঠা কমায়।
মাসিক পূর্ববর্তী উপসর্গ কমায়।
 
 
খাবার বড়ি গ্রহণের অসুবিধা
প্রতিদিন খেতে হয়।
যৌন রোগ প্রতিরোধ করে না।
মাসিক স্রাব বন্ধ থাকতে পারে।
যোনিপথের পিচ্ছিলতা কমে যেতে পারে।
বুকের দুধ কমে যেতে পারে।
বিমর্ষতা দেখা দিতে পারে।
চোখের দৃষ্টি শক্তি লোপ পাওয়া বা ঝাপসা দেখা।
মাইগ্রেন এর ব্যাথা।
বিষন্নতায় ভোগা।
বিরক্তি অনুভব করা বা খিটখিটে মেজাজের আচরণ।
অনিয়মিত মাসিক।
যারা পিল খায় নিয়মিত তারা সেক্সের সময় তেমন আনন্দ পায় না।
 
 
খাবার বড়ির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
খাবার বড়ি ব্যবহারে ছোটখাটো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। যেমন-
উচ্চ রক্তচাপ দেখা দিতে পারে
স্তন ভারী বোধ হওয়া এবং স্তন স্পর্শ কালে ব্যথার অনুভুতি
দুই মাসিকের মধ্যবর্তী সময়ে ফোঁটা ফোঁটা রক্তস্রাব
বিমর্ষতা দেখা দিতে পারে
বমি বমি ভাব
মাথা ধরা
মুখে ব্রন
ওজন বৃদ্ধি
যে সমস্ত মহিলা মায়োকার্ডিয়াল ইনফারকশন, স্ট্রোক ইত্যাদি-এ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি আছে, তাদের ঝুঁকি আরো বাড়িয়ে দেয়।
ক্লোয়াজম বা গর্ভাবস্থার মতো মুখের ত্বকের রঙের পরিবর্তন হতে পারে।
শিরার রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।তাই অতিতে বা বর্তমানে যাদের এই সমস্যা হয়েছে, তারা ইস্ট্রোজেন সমৃদ্ধ মিশ্র খাবার বড়ি খেতে পারবেন না।
 
 
জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সেবনের পূর্বে সতর্কতা
আপনি যদি প্রথম বাচ্চা না নিয়ে থাকেন আপনার জন্য জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সেবন না করার পরামর্শ থাকবে কারন। এতে করে পরবর্তি বাচ্চা নেয়ার ক্ষেত্রে জটিলতার সৃষ্টি হতে পারে। এমনকি প্রথম সন্তান নেয়ার পর অনেক দিন পর্যন্ত যদি জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সেবন করতে থাকেন তাহলে পরবর্তি সন্তান নেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দিতে পারে। এছাড়াও ওজন বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই ডাক্তারের  পরামর্শ অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময় পর্যন্তই পিল খেতে হবে।
জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য জেনে বুঝে গ্রহণ করা উচিত । তাই যেকোনো প্রয়োজনে কনফিউস্ড না থেকে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উত্তম।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
স্বাস্থ্য ও জীবন পাতার আরো খবর

Developed by orangebd