ঢাকা : মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১

সংবাদ শিরোনাম :

  • পদ্মা সেতুর কাজের অগ্রগতি প্রায় ৯১ ভাগ : সেতুমন্ত্রী          মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হোয়াইট হাউসে যে-ই আসুক বাংলাদেশের সমস্যা নেই : মোমেন           মাস্ক পরিধান সংক্রান্ত নির্দেশনা প্রদান          গত ২৪ ঘন্টায় শনাক্ত ১৩২০ করোনা রোগী, মৃত্যুবরণ ১৮ জন          ব্রহ্মপুত্র-যমুনা ও পদ্মা ছাড়া সব নদ ও নদীর পানি কমছে           শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি ফের বাড়লো          ২০২০ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হার হয়েছে ৫.২৪ শতাংশ : বিবিএস          ভ্যাট পরিশোধ করা যাবে অনলাইনে
printer
প্রকাশ : ২১ জুন, ২০১৮ ১৬:৫৪:৩৩
স্বর্ণের দাম কমলো ভরিতে ১১৬৬ টাকা
টাইমওয়াচ রিপোর্ট


 


দেশের বাজারে সব ধরনের স্বর্ণের দাম কমছে। প্রতি ভরি স্বর্ণে সর্বোচ্চ এক হাজার ১৬৬ টাকা পর্যন্ত কমিয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করেছে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)।
বুধবার (২০ জুন) এক বিজ্ঞপ্তিতে বাজুস এ তথ্য জানিয়েছে। বৃহস্পতিবার (২১ জুন) থেকে নতুন দাম কার্যকর হচ্ছে বলে জানিয়েছে বাজুস। তবে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়েছে। অপরিবর্তিত রয়েছে রুপার দাম।
আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম কমার কারণে দেশের বাজারে তা সমন্বয় করতে দাম কমানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা।
বাজুস জানায়, নতুন দাম অনুযায়ী প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম এক হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে ৪৯ হাজার ৮০৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া ২১ ও ১৮ ক্যারেটের দাম এক হাজার ১৬৬ টাকা কমানো হয়েছে। এর মধ্যে ২১ ক্যারেট ৪৭ হাজার ৫৩০ টাকা, ১৮ ক্যারেট স্বর্ণের দাম ৪২ হাজার ৪৫৬ টাকা। আর সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের ভরি এক হাজার ১৬৬ টাকা বাড়িয়ে ২৭ হাজার ৫৮৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।
প্রতি ভরি ২১ ক্যারেট রুপার (ক্যাডমিয়াম) দাম নির্ধারণ করা হয়েছে এক হাজার ৫০ টাকা।
সারাদেশের স্বর্ণের দোকানগুলোতে বুধবার (২০ জুন ) ২২ ক্যারেটের মানের প্রতি ভরি স্বর্ণ বিক্রি হয় ৫০ হাজার ৯৭১ টাকা। ২১ ক্যারেট ৪৮ হাজার ৬৯৭ টাকা এবং ১৮ ক্যারেট স্বর্ণ ৪৩ হাজার ৬২৩ টাকায়। সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের ভরি ২৬ হাজার ৪১৮ টাকা।
বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা বলেন, দেশের স্বর্ণের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে সঙ্গে ওঠানামা করে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমেছে। তাই বিশ্ববাজারের সঙ্গে সমন্বয় করতে দেশের বাজারেও দাম কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়েছে। কারণ পুরাতন স্বর্ণ গলিয়ে এ স্বর্ণ তৈরি করা হয়। বর্তমানে এ ধরনের স্বর্ণ দেশে খুব বেশি নেই। কিন্তু কোনো গ্রহক বাজারে পুরান স্বর্ণ বিক্রি করতে আসলে বিক্রেতারা সনাতন বলে দাম কম দেয়। এতে ভোক্তারা প্রতিনিয়ত ঠকছেন। তাই গ্রাহকের স্বার্থ বিবেচনায় সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়েছে। আগামীতে ধাপে ধাপে এ স্বর্ণের দাম আরও বাড়ানো হবে বলে জানান তিনি।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
অর্থ-বাণিজ্য পাতার আরো খবর

Developed by orangebd