ঢাকা : শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯

সংবাদ শিরোনাম :

  • বনাঞ্চলের গাছ কাটার ওপর ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা          দেশের সব ইউনিয়নে হাইস্পিড ইন্টারনেট থাকবে          বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে ফিলিপাইনের আরসিবিসির মামলা          দুর্নীতি করলেই যথাযথ ব্যবস্থা : প্রধানমন্ত্রী          মিয়ানমার সংকট : শান্তিপূর্ণ সমাধান চায় জাতিসংঘ
printer
প্রকাশ : ২২ জুন, ২০১৮ ১৩:১৫:১৩
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জন্ম নেওয়া শিশুদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত
কায়সার হামিদ মানিক, উখিয়া


 

বাংলাদেশ আশ্রিত রোহিঙ্গা নারীরা অনেকে নতুন মা হয়েছেন। আবার অনেকে মা হতে যাচ্ছেন। কারো জানা নেই, তাদের আগত কিংবা অনাগত শিশুদের ভবিষ্যৎ কি হবে? এসব রোহিঙ্গা পিতা-মাতা তাদের শিশুদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের বিষয়ে একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কোনো সহায় নেই বলে জানান। গর্ভবতী নারী এবং নবজাতক শিশুরা পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা ও প্রয়োজনীয় সহযোগিতা পাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন রোহিঙ্গা গর্ভবতী নারীরা।
মিয়ানমারে বিভীষিকাময় অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়ে গত বছরের ২৫ আগস্ট পরবর্তী দেশটির রাখাইন রাজ্য থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে লাখ লাখ রোহিঙ্গা। চলমান নিবন্ধন প্রক্রিয়ার তথ্যমতে, আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা গত ১৮ মে পর্যন্ত ১১ লাখ ১৭ হাজারে দাঁড়িয়েছে। পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের অধিকাংশই নারী-শিশু। এর মধ্যে ৭০ শতাংশই নারী।
বিশাল এ জনগোষ্ঠীর মাঝে প্রায় অর্ধ লক্ষ মহিলা অন্তঃসত্ত্বা (হামিল)। তবে ২০১৮ সালে বাংলাদেশে ৪৮ হাজার রোহিঙ্গা শিশু জন্ম নেবে বলে জানিয়েছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিয়োজিত আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন। এছাড়াও প্রতিদিন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গড়ে ৬০ জন রোহিঙ্গা শিশু জন্ম নিচ্ছে এমন তথ্য ইউনিসেফের।
ইউনিসেফের তথ্যমতে, দশ মাস আগে সঙ্কট শুরুর পর থেকে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ১৬ হাজারের বেশি শিশু জন্ম নিয়েছে। এদের মধ্যে মাত্র তিন হাজার শিশুর জন্মের সময় স্বাস্থ্যকর্মীদের সহযোগিতা পেয়েছে। অন্যরা ক্যাম্পে ত্রিপলের ছাউনির ঝুপড়িতে ক্যাম্পগুলোতে অযতœ অবহেলায় জন্মগ্রহণ করছে।
ক্যাম্পে জন্ম নেওয়া এসব নবজাতকের একটি বড় অংশ বিভিন্ন রোগ ও পুষ্টিহীনতার ফলে মারা যেতে পারে এমনটি আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিপুলসংখ্যক শিশুর জন্ম প্রক্রিয়া, স্বাস্থ্য এবং পুষ্টি মোকাবিলা করা বাংলাদেশের জন্য একটি বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
২০ জুন কথা হয় ঘুমধুম ক্যাম্প-৭ এর জি ব্লকের হেড মাঝি মো. হাছন-এর সাথে। তিনি জানান, তার ব্লকে ৯শ পরিবারের মধ্যে ৩১ জন গর্ভবতী মহিলা আছে।
মিয়ানমারের মংডু জামবনিয়া থেকে পালিয়ে আসা একরাম উল্লাহর স্ত্রী গর্ভবতী রাজিয়া বেগম (২০) জানান, এ পর্যন্ত চেকআপ করা হয়নি। মাতৃত্বকালীন কত বার চেকআপ করা দরকার তাও জানেন না। এটা তার দ্বিতীয় সন্তান। বড় সন্তানের বয়স ২ বছর। তাদের ভবিষ্যৎ ও নিরাপদ মাতৃত্বের বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, আল্লাহ যা করে তা হবে। ভবিষ্যতের চিন্তা করি না। একই ধরনের কথা বলেন প্রথমবার গর্ভবতী হওয়া ফকিরাবাজার এলাকার মঞ্জুর আলমের স্ত্রী হলেকা বেগম (১৮)।
ত্রিপলের ঝুপড়িতে ভ্যাপসা গরমে স্যাঁতস্যাতে মাটির উপর পাটি বিছিয়ে শুয়ে রেখেছে ১২ দিনের শিশু কন্যা শওকত আরাকে। গায়ে নেই কোন কাপড়। শিশুটির পিতা ওবাইদুর রহমান (২২) লাকড়ি কুড়াতে গেলে মায়ের প্রসব বেদনা শুরু হয়। কোন ডাক্তার বা অভিজ্ঞ ধাত্রীর সহযোগিতা ছাড়াই ঝুপড়িতে সন্তান জন্ম দেয়ার করুণ বর্ণনা দেন মা হাসিনা বেগম (২১)।
প্রতিটি ঝুপড়ির সামনে বয়ে গেছে মল-মূত্রের নালা। এসব নালার পাশে হামাগুড়ি দিচ্ছে ক্যাম্পের শিশুরা। তাদের একজন ইকবাল মিয়া শিশু কন্যা মোকারমা (৯ মাস)।
শিশু বিশ্লেষকরা বলছেন, এই শিশুদের সুষ্ঠুভাবে বেড়ে উঠার জন্য পরিকল্পনা নিতে হবে সরকার ও সংশ্লিষ্ট দাতা সংস্থাগুলোকে।
রোহিঙ্গা শিশুর জন্মের আগে এবং পরে প্রসূতি মায়ের যতœ, এরপর ডেলিভারি সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে চাইলে সদ্য বদলিজনিত উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মিজবাহ উদ্দিন বলেন, সার্ভিসটা দেশের অন্যান্য কমিউনিটি ক্লিনিক বা উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে চালু না থাকলেও উখিয়ার বালুখালী উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র, কুতুপালং কমিউনিটি ক্লিনিক, পালংখালী পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে রোহিঙ্গা আসার আগে থেকে চলমান ছিল।
তিনি আরো বলেন, রোহিঙ্গা মায়েরা হাসপাতালে ডেলিভারি করানোর চেয়ে বাড়িতে ডেলিভারি করাতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। বিশেষ করে রক্ষণশীলতার কারণে অনেকে প্রসবকালীন মৃত্যুঝুঁকিতে থাকে বেশি। প্রসূতি মা ও শিশুর পুষ্টির ব্যাপারেও স্বাস্থ্য বিভাগ এবং বিভিন্ন সংস্থা তাদেরকে বুঝানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
বিশেষ প্রতিবেদন পাতার আরো খবর

Developed by orangebd