ঢাকা : বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম :

  • দুই দেশের সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাক : মমতা           কারও মুখের দিকে তাকিয়ে মনোনয়ন দেয়া হবে না : প্রধানমন্ত্রী          ২২তম অধিবেশন চলবে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত          জীবনমান উন্নয়নের শিক্ষাগ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী          দেশের উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে          বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছতে পারবে না : জয়
printer
প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৭:৩০:১৮আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৬:৫৬:৫৪
চট্টগ্রাম বন্দর ঘুরে দাঁড়িয়েছে
টাইমওয়াচ রিপোর্ট


 


নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বর্তমান সরকারের সময়ে বন্দরসমূহ এবং রাস্তা ঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে উল্লেখ করে বলেন,  গত ১০ বছরে চট্টগ্রাম বন্দর ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

১৬ সেপ্টেম্বর রোববার রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আই বি এফ বি) আয়োজিত ”লজিষ্টিকাল চ্যালেঞ্জেস এন্ড অপরচুনিটিস অফ বিজনেস” শীর্ষক এক সেমিনার  প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি

আইবি এফবিএর প্রেসিডেন্ট হুমায়ুন রশীদ এর সভাপতিত্বে এম এস সিদ্দিকী এর সঞ্চালনায়  এতে আইবিএফবি ’র সদস্যবৃন্দ, কুটনৈতিক মিশনের সদস্য, বিভিন্ন ব্যাবসায়িক সংগঠনের কর্মকর্তা, সরকারী কর্মকর্তা অংশগ্রহণ করেন।

আইবি এফবিএর প্রেসিডেন্ট হুমায়ুন রশীদ জানান, যে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বাংলাদেশের অবস্থানেরও পরিবর্তন হয়েছে, পরিবর্তিত অবস্থায়  দেশের  বন্দর, রেল, বিমানবন্দর, রাস্তা, ঘাট ও যোগাযোগের সুবিধা বৃদ্ধি করা না গেলে ব্যাবসা বাণিজ্যের গতি শ্লথ হবে যার ফলে অর্থনৈতিক উন্নয়ন টেকসই হবে না সেই ধারনা থেকে আজকের এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে।  

নৌ পরিবহন মন্ত্রী বলেন, এ সময়ে বন্দরের জন্য অনেক যন্ত্রপাতি সংগ্রহ করা হয়েছে এবং এ বছরও ১০টি ক্রেন সংগ্রহ করা হবে মর্মে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। তিনি উল্লেখ করেন ২০০৯ সালে লজিষ্টিক এর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৯৮ এ কিন্তু বর্তমান সরকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম নেয়ার ফলে  তা ২০১৭ সালে ৭১ এ উন্নীত হয়েছে এবং আশা করা যাচ্ছে এবছর আরও একধাপ এগিয়ে যাবে। বন্দর শ্রমিকদের জন্য বিভিন্ন কল্যাণমূলক কার্যক্রম নেয়ায় শ্রমিকদের মধ্যে অসন্তোষ না থাকায় বন্দরের কাজ নির্বিঘœ হচ্ছে।

তিনি জানান, ইতিমধ্যেই বে টার্মিনালের জন্য কাজ শুরু হয়েছে এবং জমি অধিগ্রহনের বাবদ অর্থ জেলা প্রশাসনকে হস্তান্তর করা হয়েছে। তিনি আরও উল্লেখ করেন মোংলা বন্দর যেখানে লোকসানি প্রতিষ্ঠান ছিল সেখানে বর্তমান সরকারের পদক্ষেপ এবং কেপিটেল ড্রেজিংএর ফলে মোংলা বন্দর এখন লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিনত হয়েছে। মোংলা বন্দরের জন্য ক্রেন কেনা হচ্ছে মর্মে তিনি জানান। তিনি আরও উল্লেখ করেন পানগাঁও টার্মিনালের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে এবং এর কন্টেইনার হ্যান্ডলিং বৃদ্ধি পেয়েছে। স্থল বন্দর সমূহের উন্নয়নের জন্যও সরকার অনেক পদক্ষেপ নিয়েছে।  

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধে উপস্থাপন করে আমেরিকান অর্থনীতিবিদ ফরেস্ট কুকসন উল্লেখ করেন দেশের আমদানি রফতানী বৃদ্ধি পাচ্ছে সেই সাথে বন্দরের ক্ষমতাও বৃদ্ধি করতে হবে কিন্তু ৫ বছর পর ১৬টি বার্থিং স্লটে আর ক্ষমতা বৃদ্দি করা সম্ভব হবে না তাই বে সাইড টার্মিনাল নির্মান করা প্রয়োজন। ক্রমবর্ধমান আমদানী/রপ্তানী  ব্যাবস্থাপনার জন্য এখন হতেই সমূদ্রবন্দর, সড়ক,বিমানবন্দর ও স্থল বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধির পদক্ষেপ নিতে হবে।

মূল প্রবন্ধের উপর আলোচনায় অংশ নেন সিপিডি এর রিসার্স ডিরেক্টর ড: খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম  ও বি আই ডি এস এর সিনিয়ার রিসার্স ফেলো ড: নাজনীন আহমেদ। সেমিনারে অংশগ্রহনকারী  কয়েকজন তাদের বক্তব্যে বন্দর সমূহের দক্ষতা বৃদ্ধির আশাবাদ ব্যাক্ত করেন। আই বি এফ বি ’র ভাইস প্রেসিডেন্ট ফাইনান্স লুৎফুন্নিছা সাউদিয়া খান এবং আই বি এফ বি ’র চট্টগ্রাম এর প্রেসিডেন্ট এস এম আবু তৈয়ব বকÍব্য রাখেন।

আইবিএফ বি’র প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী সমাপনী বক্তব্যে চট্টগ্রাম বন্দরের জমি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে লীজ দেয়ার বিষয়টি পুনর্বিবেচনার জন্য প্রধান অতিথির প্রতি আহবান জানান।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
অর্থ-বাণিজ্য পাতার আরো খবর

Developed by orangebd