ঢাকা : সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

সংবাদ শিরোনাম :

  • একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দক্ষ প্রকৌশলীর বিকল্প নেই : রাষ্ট্রপতি          রাজধানীর ৬৪ স্থানে বাস স্টপেজ নির্মাণ হবে : কাদের          ২০৩০ সালের মধ্যে দেশে ৩ কোটি যুবকের কর্মসংস্থানের হবে : অর্থমন্ত্রী          দ্বীপ ও চরাঞ্চলে পৌঁছাচ্ছে ইন্টারনেট           সরকারি ব্যয়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে : স্পিকার          রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর          বাংলাদেশে আইএস বলে কিছু নেই : হাছান মাহমুদ
printer
প্রকাশ : ৩০ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:১৬:০২আপডেট : ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৩:০০:২৬
বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ কমিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক
টাইমওয়াচ রিপোর্ট


 


লক্ষ্য অর্জিত না হওয়ায় বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহের গতি কমালো বাংলাদেশ ব্যাংক। নতুন মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের জানুয়ারি-জুন ২০১৮-১৯ দ্বিতীয়ার্ধের মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একইসঙ্গে সরকারি খাতের ঋণের প্রবৃদ্ধি বাড়িয়ে ১০ দশমিক ৯ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে।
বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির ২০১৮-১৯ অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের মুদ্রানীতি ঘোষণা করেন। গভর্নর বলেন, চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ নির্ধারণ করা হলেও তার লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হয়নি। তবে এবার অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৫ নির্ধারণ করা হয়েছে তা অর্জন করা সম্ভব হবে বলে আমরা আশা করছি। প্রথমার্থে সরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি ছিল ৮ দশমিক ৫ শতাংশ। এছাড়াও, মুদ্রানীতিতে অভ্যন্তরীণ ঋণের প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা সর্বশেষ মুদ্রানীতির সমান ১৫ দশমিক ৯ শতাংশ অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। অর্থবছরের প্রথমার্ধে বেসরকারি খাতের ঋণের লক্ষ্যমাত্রা কোনো অর্জন সম্ভব হয়নি তার ব্যাখ্যায় গভর্নর জানান, চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধের শেষ দিকে এসে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন থাকায় বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৮ শতাংশের পরিবর্তে ১৩ দশমিক ৩ শতাংশ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হয়। তবে, নতুন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে। খেলাপি ঋণ প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, এখন থেকে নতুন করে আর খেলাপি ঋণ বাড়বে না বরং কমে আসবে। এ নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং অর্থ মন্ত্রণারয় কাজ করছে। ডলারের দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ডলারের দাম বৃদ্ধিতে উদ্বেগের কিছু নেই। বরং ডলারের বিপরীতে টাকা বেশ শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, জ্বালানি তেলের দাম খুব বেশি ওঠানামা করছে না। এটা নিয়ে খুব বেশি উদ্বেগের কোনো কারণ নেই। বেসরকারি ব্যাংকিং খাতে সরকারের বিভিন্ন ছাড় দেয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমানত ও ব্যাংক ঋণ সুদের হার ৬ ও ৯ পুরোপুরি কার্যকর না হওয়ার বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কাজ করছে। তিনি বলেন, ৫৯টি ব্যাংকের মধ্যে ১১টি ব্যাংকের এডি রেশিও কিছুটা বেশি। এটা নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক নজর রাখছে। আরেক প্রশ্নের জবাবে ফজলে কবির বলেন, বিদেশি বিনিযোগ বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকার নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে। ইতিমধ্যে এর কিছু সুফল পাওয়া যাচ্ছে। নতুন তিনটি ব্যাংকের অনুমোদন দেয়ার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর বলেন, ২০১৭ সালে ব্যাংক তিনটি সব শর্ত পরিপালন করে আবেদন করার পরেও বাংলাদেশ ব্যাংক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখছে দেয়া হবে কিনা। এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গর্ভনর এসএম মনিরুজ্জামান, বাংলাদেশ ব্যাংকের চেইঞ্জ ম্যানেজমেন্ট পরামর্শক আল্লা মালিক কাজমী, বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান, ব্যাংকিং রিফর্ম অ্যাডভাইজার এস. কে. সুর চৌধুরী, অর্থনৈতিক উপদেষ্টা মো. আখতারুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
অর্থ-বাণিজ্য পাতার আরো খবর

Developed by orangebd