ঢাকা : শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯

সংবাদ শিরোনাম :

  • বনাঞ্চলের গাছ কাটার ওপর ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা          দেশের সব ইউনিয়নে হাইস্পিড ইন্টারনেট থাকবে          বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে ফিলিপাইনের আরসিবিসির মামলা          দুর্নীতি করলেই যথাযথ ব্যবস্থা : প্রধানমন্ত্রী          মিয়ানমার সংকট : শান্তিপূর্ণ সমাধান চায় জাতিসংঘ
printer
প্রকাশ : ১৩ মার্চ, ২০১৯ ০৯:২৩:১০
বেনাপোল পৌরসভার প্যানেল মেয়র তুহিনের লাশ উদ্ধারের চেষ্টা
এম এ রহিম, বেনাপোল


 


অবশেষে বেনাপোল পৌরসভার প্যানেল মেয়র উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি তারিকুল আলম তুহিনের লাশের সন্ধানে দীর্ঘ ৬ বছর পর মঙ্গলবার বিকালে একটি ভবনের নিচে মাটি খুড়ে লাশ উদ্ধারের চেষ্টার করেও হদিস পায়নি সিআইডি ঢাকার কর্মকর্তারা সহ জেলা নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট। দীর্ঘ ৫ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে রাতে লাশের সন্ধানে খনন কাজের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়। তুহিনের লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে  ঘটনাস্থলে জড়ো হয় হাজার হাজার উৎসুক জনতা।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ২০১৩ সালের ৭ মার্চ ঢাকা থেকে নিখোঁজ হয় তরিকুল আলম তুহিন। অল্প বয়েসে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন তিনি। তার নিখোঁজের খবরে বেনাপোল সহ শার্শা উপজেলায় আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠে। স্থানীয় এক জন প্রতিনিধির দিকে তীর ছোঁড়েন অনেকে। দীর্ঘ ৬ মাসেও তুহিনের খোঁজ পায়নি পরিবারের সদস্যরা। অবশেষে মামলাটি সিআইডিতে যায়। স্থানীয় অনেক নেতাকে প্রশাসনের সদস্যরা জিজ্ঞাসাবাদ করে বলেও সূত্রে জানায়।
ঢাকা সিআইডি এ এসপি উত্তম কুমার ঘোষ ও যশোর জেলা নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট কওসার হাবিব জানান, কোর্টের নির্দেশে তুহিনের লাশের সন্ধানে বেনাপোল বাজারের পুকুরপাড় মসজিদের পাশে বাজার কমিটির অফিসে খনন করেন তারা। এখানে অনুসন্ধান চালিয়ে না পাওয়ায় প্রাথমিকভাবে কাজের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে কোর্টের নির্দেশনা পেলে আবারও অনসন্ধান চলানো হবে বলে জানান তারা। তবে ইনভেষ্টিগেশন চলমান থাকবে বলে জানান- নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট কওসার হাবিব।
গূত্রমতে জানায়, একটি চক্র এই খুনের সাথে জড়িত থাকতে পারে। ঘটনাস্থলে তুহিন ও পলাশ হোসেন নামে দু’জনের লাশ থাকতে পারে বলে জানান সিইডি সৃূত্র। ৫ সদস্যের সিআইডি সদস্য ছাড়া পোর্ট থানার পুলিশ কর্মকর্তা ও বিভিন্ন বাহিনীর গোয়েন্দা সদস্যরা এসময় উপস্তিত ছিলেন।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি(তদন্ত) সৈয়েদ আলমঙ্গীর হোসেন জানান, পুলিশের ইনভেষ্টিগেশন চলছে। লাশের অনুসন্ধানে কাজ করছেন প্রশাসনের সদস্যরা। তবে বাজার কমিটির ঘরটি অনুসন্ধানের স্বার্থে আপাতত বন্ধ থাকবে বলে জানান তিনি। প্রকৃত ঘটনা উদঘাটিত হোক এমনটাই জানান স্থানীয়রা। নির্খোঁজ না হত্যা প্রকৃত ঘটনা বের করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান নিহতের স্ত্রী সালমা আলম ও শার্শা সদর ইউপি  চেয়ারম্যান সোয়ারাব হোসেন।

printer
সর্বশেষ সংবাদ
সারা দেশ পাতার আরো খবর

Developed by orangebd