ঢাকা : বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

সংবাদ শিরোনাম :

  • ‘এসডিজি প্রোগ্রেস অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা          করোনায় আরও ২৬ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৫৬২ জন          বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ, নদীবন্দরসমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত          জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মেডেল পেলেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১১০ সদস্য          অষ্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশের মধ্যে টিফা চুক্তি স্বাক্ষর          অনিবন্ধিত সব অনলাইন বন্ধ করে দেওয়া সমীচীন হবে না : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী
printer
প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১০:০৫:৫০
ইসলামে পিতার মর্যাদা ও সম্মান
রুপম আক্তার


 


পিতা-মাতার প্রতিই সন্তানের দায়িত্ব ও কর্তব্য সর্বাধিক। যে পিতা-মাতার কারণে একজন সন্তান পৃথিবীতে ভুমিষ্ঠ হয়। রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা পিতা-মাতার মর্যাদা ও সম্মান দিয়েছেন অনেক উপরে। ছেলেমেয়ের জন্য তারা কি না করেন। মা-বাবার প্রতি সর্বদা ভক্তি-শ্রদ্ধা রাখা, তাদের সঙ্গে নম্র আচরণ করা এবং তাদের সেবা-যত্ন করার ব্যাপারে সবচয়ে বেশি তাকিদ প্রদান রয়েছে ইসলামে। স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা কোরআনের বহু আয়াতে পিতা-মাতার সঙ্গে সদাচরণের নির্দেশ দিয়েছেন।
সুরা বনি ইসরাইলের ২৩ ও ২৪ নং আয়াতে আল্লাহ বলেন, ‘তোমার পালনকর্তা আদেশ করেছেন, তাকে ছাড়া অন্য কারও ইবাদত কর না আর পিতা-মাতার সঙ্গে সদ্ব্যবহার কর। তাদের একজন অথবা উভয়েই তোমার কাছে বার্ধক্যে উপনীত হলে তাদেরকে ‘উফ’ শব্দটিও বল না। তাদেরকে ধমক দিয়ো না। বরং তাদের সঙ্গে শিষ্টাচারপূর্ণ কথা বলো। তাদের সামনে বিনয়ের ডানা বিছিয়ে দাও এবং বল, হে পালনকর্তা, তাদের উভয়ের প্রতি দয়া কর, যেমন তারা আমাকে শৈশবকালে লালন-পালন করেছেন।’
হুকুকুল ইবাদ তথা মানুষের অধিকারের মধ্যে পিতা-মাতার অধিকার অগ্রগণ্য। রাসুলুল্লাহকে (সা.) পিতা-মাতার অধিকার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বললেন, ‘তারা তোমার জান্নাত অথবা জাহান্নাম।’ (ইবনে মাজা : ৩৬৬২) অর্থাৎ তাদের সেবা-যতেœ আল্লাহর জান্নাত পাওয়া যাবে। পক্ষান্তরে তাদের অন্তরে কষ্ট দিলে জাহান্নাম অবধারিত। নবীজি (সা.) এরশাদ করেছেন, ‘পিতার সন্তুষ্টিতে আল্লাহ সন্তুষ্ট এবং পিতার অসন্তুষ্টিতে আল্লাহ অসন্তুষ্ট।’ (তিরমিজি : ১৯৬২)। অন্য বর্ণনায় এসেছেÑ ‘পিতা জান্নাতের মধ্যবর্তী দরজা। এখন তোমার ইচ্ছা, এর হেফাজত কর অথবা একে বিনষ্ট করে দাও।’ (মুসনাদে আহমদ : ২১৭৬৫)
পিতা-মাতা সন্তানের প্রতি জুলুম করলেও তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করা যাবে না। এ মর্মে ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে একটি হাদিস বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য পিতা-মাতার আনুগত্য করে তার জন্য জান্নাতের দুটি দরজা খোলা থাকে। একজনের আনুগত্য করলে জান্নাতের একটি দরজা খোলা থাকবে। আর যে ব্যক্তি তাদের অবাধ্য হয় তাদের জন্য জাহান্নামের দুটি দরজা খোলা থাকে। একজনের অবাধ্যতা করলে জাহান্নামের একটি দরজা উন্মুক্ত থাকবে। জনৈক ব্যক্তি জিজ্ঞাসা করল, ইয়া রাসুলুল্লাহ! যদি পিতা-মাতা সন্তানের ওপর অবিচার করে? নবীজি বললেন, সন্তানের প্রতি পিতা-মাতা অবিচার করলেও তাদের হক নষ্ট করার দরুন তাকে জাহান্নামে যেতে হবে।’ (মেশকাত : ৪৯৪৩)। এ থেকে বোঝা যায়, মা-বাবার সম্মান ও মর্যাদা কতটা ঊর্ধ্বে।
বস্তুত মা-বাবা সন্তানের জন্য বিরাট নেয়ামত। তাদের খেদমত ও সেবা-যত্নের সুফল সন্তান দুনিয়াতেই ভোগ করে।
এ মর্মে নবীজি (সা.) এরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি দীর্ঘ হায়াত এবং রিজিক বৃদ্ধির কামনা করে সে যেন আপন পিতা-মাতার সঙ্গে সদ্ব্যবহার করে এবং আত্মীয়তার বন্ধন বজায় রাখে।’ (শুয়াবুল ঈমান লিল বায়হাকি : ৭৮৫৫)। পিতা-মাতার প্রতি সন্তানের সুদৃষ্টি কবুল হজের সওয়াব সমতুল্য।
রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেছেন, ‘পিতা-মাতার অনুগত সন্তান তাদের প্রতি দয়ামায়ার দৃষ্টিতে তাকালে আল্লাহ তায়ালা প্রতিটি দৃষ্টির বিনিময়ে একটি করে কবুল হজের নেকি লিখে দেন। সাহাবাগণ আরজ করলেন, ইয়া রাসুলুল্লাহ! যদি প্রতিদিন শতবার তাকায়? তিনি বললেন, হ্যাঁ, তবুও। আল্লাহ তার থেকে বেশি দাতা ও শ্রেষ্ঠ।’ (কানজুল উম্মাল : ৪৫৫৩৫)
পিতা-মাতার খেদমত ও তাদের সঙ্গে উত্তম আচরণের প্রতিদান যেমন অফুরন্ত, তেমনি তাদের অবাধ্য হওয়া এবং তাদেরকে কষ্ট দেওয়ার গুনাহও মারাত্মক।
একটি হাদিসে নবীজি (সা.) এরশাদ করেছেন, আমি তোমাদের সবচেয়ে মারাত্মক গুনাহর কথা বলব? সাহাবাগণ বললেন, জি, বলুন। রাসুল বললেন, তা হলো, আল্লাহর সঙ্গে শিরক করা, পিতা-মাতার অবাধ্য হওয়া এবং মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়া অথবা মিথ্যা কথ্যা বলা।’ (মুসলিম : ২৬৯)।
অন্য একটি হাদিসে নবীজি (সা.) পিতা-মাতার অবাধ্য সন্তানের জন্য বদ দোয়া করেছেন। তিনি এরশাদ করেন, ‘তার নাক ধূলি ধূসরিত হোক। কথাটা তিনবার বললেন। জিজ্ঞাসা করা হলো, ইয়া রাসুলুল্লাহ! কার কথা বলছেন? তিনি বললেন, যে ব্যক্তি তার পিতা-মাতার কোনো একজনকে অথবা উভয়জনকে বৃদ্ধ অবস্থায় পেল অথচ জান্নাতে প্রবেশ করতে পারল না। অর্থাৎ তাদের খেদমত করে জান্নাতের উপযুক্ততা লাভ করতে সক্ষম হলো না।’ (মুসলিম : ২৫৫১)

printer
সর্বশেষ সংবাদ
ধর্মতত্ত্ব পাতার আরো খবর

Developed by orangebd